এমসি কলেজে নারী গণধর্ষণের হবিগঞ্জ১আসামি পলাতক

এমসি কলেজে নারী গণধর্ষণের হবিগঞ্জ১আসামি পলাতক

এমসি কলেজে নারী গণধর্ষণের ঘটনায় ।
 স্টাফ রিপোর্টার সিলেটের এমসি কলেজে নারী গণধর্ষণের ঘটনায় হবিগঞ্জের এক ছাত্রসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে এবং দুই নিরাপত্তা কর্মীকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়া দিনভর বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ হয়েছে সিলেটে। এদিকে ধর্ষণে অভিযুক্ত ৬ ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া গেছে। এর মাঝে একজন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নিজামপুর ইউনিয়নের বাগুনিপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শাহ জাহাঙ্গীর মিয়ার পুত্র শাহ মাহবুবুর রহমান রনি। স্থানীয় সূত্র জানায়, শাহ মাহবুবুর রহমান রনি শায়েস্তাগঞ্জ ইসলামিয়া একাডেমী থেকে এসএসএসি পাশ করে শাবিপ্রবিতে ইন্টারমিডিয়েট ও এমসি কলেজ থেকে অর্নাস করে এমসি কলেজ থেকে স্নাতকোত্তর করছে। পড়ালেখায় মেধাবী হলেও ছোটবেলা থেকেই সে ছিল উগ্র মেজাজের।
এলাকাবাসী জানিয়েছেন, জনি ও সানি নামের আরও দুই ভাই রয়েছে রনির। এদেও মাঝে সেই বড়। বাবা শাহ্ জাহাঙ্গীর মাজার প্রেমি হওয়ায় বেশিরভাগ সময় মাজারে মাজারে কাটান। আর এ সুযোগ কাজে লাগায় রনি। শায়েস্তাগঞ্জ দাউদনগর বাজারে তাদের একটি দোকানও রয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই জানান, পারিবারিকভাবে তার বাবা চাচাদের সাথে আশেপাশের কারও সাথে ঝগড়া বিবাদ লাগলে সে রামদাসহ দেশিয় অস্ত্র নিয়ে ধাওয়া করত। এ ছাড়া এলাকার মেয়েদের ইভিটিজিংয়ের অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার পিতা ও অন্য দুই ভাই সহজ সরল প্রকৃতির হলেও সে তাদের কিছুই পায়নি।
প্রসঙ্গত, শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) ধর্ষিত তরুণী তার স্বামীকে নিয়ে সিলেটের এমসি কলেজের ঘুরতে আসেন। ঘুরার এক পর্যায়ে রাত ৮ টার দিকে তরুণীর স্বামী সিগারেট খাওয়ার জন্য এমসি কলেজের গেইটের বাইরে বের হন। এ সময় কয়েকজন যুবক তরুণীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যেতে চান। এতে তরুণীর স্বামী প্রতিবাদ করলে তাকে মারধোর শুরু করেন ওই ব্যক্তিরা। এক পর্যায়ে তরুণী ও তার স্বামীকে তারা এমসি কলেজের হোস্টেলে নিয়ে যান। সেখানে স্বামীকে বেঁধে তিন-চারজন তরুণীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। এ সময় তাদের সাথে থাকা ৯০ টি মডেলের একটি কারও ছিনিয়ে নিয়ে যান ওই ব্যক্তিরা। পরে খবর পেয়ে পুলিশ এসে কারটি তাদের জিম্মায় নেয়। এবং তরুণীকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে প্রেরণ করে। এদিকে বিষয়টি প্রচারের পর হবিগঞ্জে নিন্দার ঝড় বইছে। এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনা শুনার পরেই তার এলাকায় ব্যাপক প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। উঠেছে নিন্দার ঝড়। লোকজন রীতিমতো ফুঁসে উঠেছেন। এলাকার কিছু মানুষের সাথে কথা বললে বিষয়টি নিয়ে তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এলাকাবাসী বলেন, অপরাধী যে দলেরই হোক, অপরাধ করলে শাস্তি অবশ্যই পেতে হবে বলে মনে করছেন অনেকে। একজন গৃহবধূকে ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠের ছাত্রাবাসে ধর্ষণ করে তারা কলেজকে কলুষিত করেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com