এমপি আবু জাহিরকে হাত তুলে সমর্থন লাখো জনতার অংশগ্রহণে তাক লাগানো শোডাউন

এমপি আবু জাহিরকে হাত তুলে সমর্থন লাখো জনতার অংশগ্রহণে তাক লাগানো শোডাউন

এমপি আবু জাহিরকে হাত তুলে সমর্থন লাখো জনতার অংশগ্রহণে তাক লাগানো শোডাউন
এমপি আবু জাহিরকে হাত তুলে সমর্থন লাখো জনতার অংশগ্রহণে তাক লাগানো শোডাউন

স্টাফ রিপোর্টার: ছোট্ট শিশু রিপন। হবিগঞ্জ শহরের মোহনপুর এলাকার এই শিশু তার ভাইয়ের কোলে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে অবাক হয়ে দেখছিল; রঙ-বেরঙের নৌকা, ব্যানার আর ফেস্টুনে লাখো জনতা মিছিল দিয়ে রাস্তা অতিক্রম করছে। সাথে আসা ভাইকে সে জিজ্ঞেস করে; রাস্তায় এত মানুষ কেন। রিপনের মতো শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধরা পর্যন্ত রাস্তায় দাঁড়িয়ে অবলোকন করেছেন হবিগঞ্জ জেলার ইতিহাসের সর্ববৃহৎ শোডাউন। লাখো জনতা শোডাউনে অংশ নিলেও দর্শকও কম ছিলেন না রাস্তার দুই পাশে। রীতিমতো উৎসবের আমেজ ছিল হবিগঞ্জ শহরে।
গতকাল দুপুরে যখন হবিগঞ্জ কেন্দ্রীয় ঈদগাহ থেকে এমপি আবু জাহিরের ১০ বছরের সফলতা উদযাপনে বর্ণাঢ্য শোভযাত্রা বের হয়, তখনকার দৃশ্য ছিল এটি। যদিও দুপুর বেলা শোভাযাত্রা শহর অতিক্রম করে, কিন্তু সকাল থেকেই শহরে ছিল উৎসবের আমেজ। খন্ড খণ্ড মিছিলের মাধ্যমে বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে পয়েন্টে পয়েন্টে জমায়েত হতে থাকেন। পরে মিছিল নিয়ে একত্র হন কেন্দ্রীয় ঈদগাহে। হবিগঞ্জ সদর, লাখাই, এবং শায়েস্তাগঞ্জবাসী আয়োজিত মিছিলটি দুপুরে শুরু হয় কেন্দ্রীয় ঈদগাহ থেকে।
হবিগঞ্জবাসীর কাছে মিছিল-মিটিং দেখার অভিজ্ঞতা নতুন নয়। তবে গতকালের শোভাযাত্রায় ছিল নতুন একটি বৈচিত্র। এই বৈচিত্র্যের নাম ড্রোন ক্যামেরা। আকাশে যখন বন বন করে উড়ে যায় ড্রোন, তখন নৌকা নৌকা বলে চিৎকার শুরু করেন উপস্থিত জনতা। এ ধরণের অনেক বৈচিত্রময় আয়োজন ছিল শোভযাত্রায়। হাজার হাজার ভুভুজেলা বাসির গগনবিদারী আওয়াজ, উন্নয়ন সম্পর্কিত শিল্পীদের গান আর রঙ-বেরঙের ফেস্টুনে বৈচিত্র্যময় ছিল এই আয়োজন।
শারীরিক অসুস্থতার জন্য শোভযাত্রায় এসেও যোগদান করতে পারেননি হবিগঞ্জের সিনিয়র আইনজীবী ও বঙ্গবন্ধু পরিষদ হবিগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবুল খায়ের। তিনি বলেন, আমার জীবনে এতবড় শোভাযাত্রা দেখিনি। এই শোভাযাত্রা প্রমাণ করেছে হবিগঞ্জ সদর, লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জের মানুষ এমপি আবু জাহিরকে কত ভালবাসে।
শায়েস্তানগর এলাকার আবুল কালাম নামে এক পথচারী বলেন, জাহির ভাই দেখাই দিছে। নৌকারে কেউ আটকাতে পারতো না।
শোভাযাত্রায় অনেক আলেম-ওলামাদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। আব্দুল করিম নামে এক বয়োবৃদ্ধ আলেম বলেন, ভাল কাজের প্রতিদান না দিলে কেউ ভাল কাজ করতে উৎসাহ পায় না। এমপি আবু জাহির ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের জন্য যে পরিমাণ কাজ করেছেন; তার প্রতিদান দিতেই আমি এই বৃদ্ধ বয়সে মিছিলে ছুটে এসেছি।
বুকে নৌকা প্রতীক একে খালি গায়ে এবং বিভিন্ন সাজ ধারণ করে শোভাযাত্রায় অংশ নেয় এক যুবক। তাকে দেখে সকলে এগিয়ে যান এবং মোবাইলে সেলফি তুলতে ভীর জমান। রিচি থেকে আসা যুবকরা এক রঙের টি শার্ট পড়ে নৌকা বেয়ে মাত করে দেন পুরো শোভাযাত্রা। ট্রাকে থাকা সঙ্গীত দলের আশেপাশে ছিল তুমুল উন্মাদনা।
সোমবার (২৯ অক্টোবর) দুপুরে এই মিছিলের আয়োজন করে হবিগঞ্জ সদর, লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলাবাসী। গত ১০ বছরে হবিগঞ্জে শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ বাস্তবায়নসহ যুগান্তকারী উন্নয়ন করায় আয়োজন করা হয় এই মিছিলের।
সকাল থেকেই হবিগঞ্জ-৩ আসনের বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন জড়ো হতে থাকে হবিগঞ্জ শহরের বিভিন্ন এলাকায়। পরে খন্ড খন্ড মিছিলের মাধ্যমে সবাই একত্রিত হন কেন্দ্রীয় ঈদগাহে। অংশগ্রহণকারীরা রং বেরঙ্গের টি-শার্ট ও ক্যাপ পরিহিত অবস্থায় এই মিছিলে অংশ নেন। ছিল বিভিন্ন উন্নয়ন এর ছবি এবং বর্ণনা সম্বলিত ফেস্টুন, জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং এমপি আবু জাহিরের ছবিও ছিল অনেকের হাতে। রং বেরঙ্গের নৌকা এবং বৈঠা নিয়েও হাজির হন অনেকেই। হাজার হাজার ভুভুজেলা বাশির সুরের মুর্ছনায় ছিল উৎসবের পরিবেশ। ছিল শিল্পীদের গানের দলের একাধিক গাড়ী ও ব্যান্ড পার্টি। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন ইউনিট, সকল সহযোগী সংগঠনের পাশাপাশি বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনও মিছিলে যোগ দেয় আলাদা ব্যানারে।
কেন্দ্রীয় ইদগাহের ফটকে শোভাযাত্রা শুরু হওয়ার পূর্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি। অন্যান্যের মাঝে বক্তৃতা করেন আওয়ামীলীগ জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সাবেক পৌর চেয়ারম্যান শহীদ উদ্দিন চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল ইক চৌধুরী, আরব আলী, শেখ শামছুল হক, শরীফ উল্লাহ, এডভোকেট আলমগীর চৌধুরী, মুকুল আচার্য্য, বিশিষ্ট মুরুব্বী সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রইছ মিয়া, যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক এডভোকেট লুৎফুর রহমান তালুকদার, সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান শামীম, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য এডভোকেট মনোয়ার আলী, সজিব আলী, এডভোকেট আফিল উদ্দিন, এডভোকেট হুমায়ুন কবির সৈকত, আক্রাম আলী, এডভোকেট ক্ষিতিশ চন্দ্র গোপ, আলমগীর খান, এডভোকেট আব্দুল মোছাব্বির বকুল, এডভোকেট শাহ ফখরুজ্জামান, সদস্য আব্দুর রহিম, এডভোকেট সৈয়দ আফজল আলী দুদু, এডভোকেট সুলতান মাহমুদ, শঙ্খ শুভ্র রায়, এডভোকেট কনক জ্যোতি সেন রাজু, মোস্তফা কামাল আজাদ রাসেল, জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবির রেজা, হবিগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি এডভোকেট নিলাদ্রী শেখর পুরকায়স্থ টিটো, সাধারন সম্পাদক মোতাচ্ছিরুল ইসলাম, হবিগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এডভোকেট আব্দুল আহাদ ফারুক, সাধারন সম্পাদক আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল, লাখাই উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মুশফিউল আলম আজাদ, শায়েস্তাগঞ্জ পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি ছালেক মিয়া, চুনারুঘাট উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি এডভোকেট আকবর হোসেন জিতু, জেলা যুবলীগ সাধারন সম্পাদক বোরহান চৌধুরী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সফর আলী, আব্দুল মোতালিব, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আউয়াল তালুকদার, আব্দুর রহমান, হোসেইন মোঃ আদিল জজ মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ সরদার, আব্দুল মুকিত, শায়েস্তাগঞ্জ পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাসুদুজ্জামান মাসুক, জেলা তাতলীগের সভাপতি মুদ্দত আলী, সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ডাঃ ইসতিয়াক রাজ চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সাইদুর রহমান ও সাধারন সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহী।
পরে কেন্দ্রীয় ঈদগাহ থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাটি বের হয়ে শহরের প্রধান সদক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় ঈদগাহে আসার পর শেষ হয়।
সদর উপজেলার ইউপি চেয়ারম্যানদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন- ফরহাদ উদ্দিন আব্বাস, আনু মিয়া, আক্তার হোসেন, এনামুল হক শেখ কামাল, মুখলিছ মিয়া, বুলবুল খান, মাহবুবুর রহমান হিরো, তাজ উদ্দিন, লাখাই উপজেলার বিভিন্ন ইউপি চেয়ারম্যানদের মাঝে- শেখ মুক্তার হোসেন বেনু, এনামুল হক মামুন, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল হাই কামাল, রফিকুল ইসলাম মলাই।
লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নরুজ্জামান মোল্লা, শরীফ উদ্দিন তালুকদার, সিরাজুল ইসলাম, জ্যোতিষ পাল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন মাস্টার, শাহ রেজা উদ্দিন আহমেদ দুলদুল, ঢাকাস্থ লাখাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফারুক আহমেদ, সর্দার উমর ফারুক, আব্দুর রহমান সরদার, লাখাই উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকরামুল মজিদ চৌধুরী শাকীল, কৃষক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সোহেল লস্কর, সাধারণ সম্পাদক আলমগীর মোল্লা, মৎস্যজীবী লীগের সভাপতি বীরেশ দাশ, সাধারণ সম্পাদক নিরঞ্জন দাশ।
সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি রফিক আলী, মহিউদ্দিন চৌধুরী পারভেজ, মীর হোসেন, সাহেব আলী, জালাল মিয়া, এমরান আহমেদ, ইসহাক আলী সেবন, আব্দুস সামাদ, জবেদ আলী মাস্টার, নুরুল হক, মাহবুবুর রহমান দিলু, সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ আলী, জাহির মিয়া, উত্তম রায়, শিবেন্দ্র চন্দ্র দেব শিবু, এডভোকেট আবুল কালাম, ফরিদ আহমেদ, আব্দুল লতিফ, বুলবুল খান, কুতুব উদ্দিন, মাহবুবুর রহমান হিরো ও মাহবুবুর রহমান দীপন। এছাড়াও সদর উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ফজল উদ্দিন তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি শেখ সেবুল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন সুমন, উপজেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি তাজু ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক কবির মিয়াসহ সদর উপজেলা ও বিভিন্ন ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
লাখাই উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিদের মাঝে আলমগীর আলম তালুকদার মাহফুজ, হাজী ইসহাক মিয়া, হাজী ফারুক মিয়া, আব্দুল মালেক লস্কর, আব্দুল কুদ্দুছ, সাধারণ সম্পাদক এনায়েত হোসেন, আব্দুল মজিদ, ইকবাল তালুকদার, আব্দুর রহমানসহ ৫৪টি ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীর।
প্রধান অতিথির বক্তৃতায় হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও হবিগঞ্জ-৩ আসনের এমপি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির বলেন, হবিগঞ্জবাসী বারবার আমাকে কৃতজ্ঞতার পাশে আবদ্ধ করেছেন। আমার নির্বাচনী এলাকার মানুষ অনেক আশা নিয়ে আমাকে নির্বাচিত করেছিলেন। আমি দিনরাত পরিশ্রম করে এই আশার প্রতিদান দেয়ার চেষ্টা করেছি। দলের নেতাকর্মী এবং এলাকার জনগণের পাশে থেকে রাজনীতি করার চেষ্টা করেছি। আগামী নির্বাচনে সকল নেতাকর্মীদেরকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। লক্ষ্য রাখতে হবে কোনও ষড়যন্ত্র যাতে আমাদেরকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে না পারে। ড. কামাল হোসেনের সাথে যে ঐক্যজোট হয়েছে তাদেরকে রাজপথে মোকাবেলা করতে হবে।
এমপি আবু জাহির তার বক্তৃতায় হবিগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক এমপি এবং বাংলাদেশের সফল অর্থমন্ত্রী প্রয়াত শাহ এএমএস কিবরিয়া ও মরহুম মোস্তফা আলীসহ যারা দলকে সুসংগঠিত করতে কাজ করেছেন, তাদেরকেও স্মরণ করেন। এ সময় তিনি আগামী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন কিনা জানতে চাইলে সকলেই হাত তোলে তাকে সমর্থন জানান।
আয়োজকরা জানান, বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা সফল করতে এবং ব্যাপক উপস্থিতি নিশ্চিত করতে রিজার্ভ করা হয়েছিল ২০০ বাস, ৫০টি ট্রাক, ৭০টি ইমা (ইউমেন ওলার)এবং প্রায় ৩ হাজার সিএনজি-অটোরিক্সা এবং ব্যাটারি চালিত ইজিবাইক টমটম। কার এলাকা থেকে বেশী লোক আসে তার জন্য ছিল রীতিমত প্রতিযোগিতা। শোভাযাত্রাটি এয়ারলিংক ক্যাবলে সরাসরি সম্প্রচার হওয়া ছাড়াও অনেকেই ফেসবুকে লাইভ দেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com