সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে পীরগঞ্জে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে বাড়িছাড়া হিন্দু পরিবার ঠাকুরগাঁওয়ে রাণীশংকৈলে ইয়াবাসহ দুই যুবক আটক হবিগঞ্জে শিকলে বেঁধে গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় স্বামী ভিংরাজ গ্রেফতার হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু কর্ণার উদ্বোধন হবিগঞ্জ শহরে মুন হাসপাতাল এবং চিকিৎসককে জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে ধনীর মেয়েকে বিয়ে করার দায়ে গরিবের ছেলেকে গাছে বেধে নির্যাতন পর্তুগাল বিএনপির সভাপতি মাফিয়া ওলিউর দু’পুত্র ও সহোদর সহ পর্তুগাল পুলিশের খাঁচায় বন্দী হবিগঞ্জ বাহুবল উপজেলা চেয়ারম্যান খলিলুর রহমানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্তে বিভাগীয় কমিশনার ইসলামে দান-সদকার সওয়াব অপরিসীম ৬ ঘণ্টা নয়, ৪ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে সিএনজি ফিলিং স্টেশন
এবারও কুরবানির পশুর চামড়া নিয়ে শঙ্কা

এবারও কুরবানির পশুর চামড়া নিয়ে শঙ্কা

http://lokaloy24.com
http://lokaloy24.com

লোকালয় ডেস্কচামড়া শিল্পে দুর্দিন আর কত দিন চলবে প্রশ্ন সংশ্লিষ্টদের। ঈদুল আযহার আর বাকি মাত্র এক সপ্তাহ। গত বছর মানুষ ক্রেতা না পেয়ে কাচা চামড়া ফেলে দিয়েছেন। এবার কি হবে কুরবানির ১ কোটি ১৫ লাখ চামড়ার। চামড়ার ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় প্রায় ৩০০ কোটি টাকা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে দেশে এতিম এবং গরিবরা। এবারও গত বছরের মত দাম রাখতে চান ট্যানারি মালিকরা। তার মানে গরিবরা এবারও বঞ্চিত হবেন।
জানা গেছে গত বছর কাঁচা চামড়ার দামে বড় ধসের কারণে কোরবানির পশুর চামড়ার অর্ধেকের বেশি নষ্ট হয়েছিল। নষ্ট হওয়া চামড়ার আর্থিক মূল্য কমপক্ষে ২৪২ কোটি টাকা। অবশ্য চামড়া রপ্তানির হিসাব করলে ক্ষতির অঙ্কটি হবে কয়েক গুণ বেশি।
ট্যানারি মালিক সূত্রে জানা গেছে, এ বছরও কোরবানির ৫৫-৬০ লাখ গরু, মহিষ, এবং ৬০-৬৫ লাখ ছাগল ও ভেড়ার চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা তাঁদের। গত বছর ন্যূনতম দাম না পেয়ে কমপক্ষে ১০-১৫ শতাংশ গরুর চামড়া সড়কে ফেলে ও মাটিতে পুঁতে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। আবার সময়মতো লবণ না দেওয়া, বৃষ্টি ও গরমের কারণেও কমপক্ষে ২০ শতাংশ গরুর চামড়া নষ্ট হয়েছে। অন্যদিকে দামের ধসের কারণে নষ্ট হয়েছে ছাগল ও ভেড়ার ৮০ শতাংশ চামড়া। তার মানে প্রায় ১ কোটি চামড়ার মধ্যে ৫৩ লাখ চামড়াই নষ্ট হয়েছিল গত বছর। এ বছরও ট্যানারি মালিকরা একই দাম নির্ধারন চান তারা। তার মানে গত বছরের অবস্থা হবে এ বছরও।
সরকারনির্ধারিত হার অনুযায়ী, গত বছর ৩০ থেকে ৩৫ বর্গফুটের বড় আকারের গরুর চামড়ার দাম হওয়ার কথা দেড় হাজার থেকে ১ হাজার ৭০০ টাকা। আর ১৫ থেকে ২৫ বর্গফুটের ছোট ও মাঝারি আকারের গরুর চামড়ার দাম ৫০০ থেকে ১ হাজার টাকা। একেকটি গরুর চামড়ার দামে গড়ে ১ হাজার টাকা ধরলে ২১০ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। আর একেকটি ছাগলের চামড়া ১০০ টাকা ধরলেও ক্ষতি হয়েছে ৩২ কোটি টাকা। ট্যানারির মালিক ও আড়তদারেরা বলছেন, প্রায় আড়াই শ কোটি টাকার চামড়া নষ্ট হয়েছে। চামড়াগুলো ঠিকঠাক থাকলে বিভিন্ন পর্যায়ে কমপক্ষে ৫০০ কোটি টাকার লেনদেন হতো।
কোরবানির পশুর চামড়া বেচাকেনায় সরকারের কার্যকর নজরদারি ও উদ্যোগের ঘাটতি রয়েছে। এই সুযোগে আড়তদার ও ট্যানারির মালিকদের কারসাজিতে আবারও চামড়ার দামে ধস নামবে। গত বছর পোস্তার চামড়ার আড়তে বিক্রি হয় ১৫০-২০০ টাকায়। তাতে প্রতি বর্গফুট চামড়ার দাম পড়ে ৩ থেকে ২০ টাকার মতো। অথচ সরকারি দর ছিল প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৪৫-৫০ টাকা। তবে সারা দেশের চিত্র ছিল আরও ভয়াবহ। দাম না পেয়ে লোকসান গুনেছেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা।গত অর্থ বছরে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছে ৮৪ কোটি ডলার সমমূল্যের।
দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রপ্তানি খাত হলেও প্রবৃদ্ধি ও লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব্যর্থ হচ্ছে। গত ২০১৯-২০অর্থ বছরের শেষ ছয় মাসে রপ্তানি আয় কমেছে ১৪ দশমিক ১৮ শতাংশ। বিপুল চাহিদা ও নিজস্ব কাঁচামাল থাকা সত্ত্বেও পণ্যের জোগান দিতে পারছেন না ব্যবসায়ীরা। এ জন্য তারা দায়ী করছেন সঠিক পরিকল্পনার অভাব ও অবকাঠামোগত সমস্যাকে। বাংলাদেশের চামড়া রপ্তানি আয়ের ওপর চীন-যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যযুদ্ধ ও ট্যানারি শিল্প নগরীর স্থানান্তরকে দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা। বিশ্বে চামড়াশিল্পের বাণিজ্য পরিমাণ একশ বিলিয়ন ডলার। এর মাত্র এক ভাগ যোগান দেয় বাংলাদেশ।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, গত তিন বছর সাভারে চামড়া কারখানা সরানোর বিষয়ে নানা জটিলতায় ক্রেতা কমেছে। আর আমলান্ত্রিক জটিলতা ও সমন্বয়ের অভাবে চামড়া শিল্প পিছিয়ে পড়ছে। এছাড়া ট্যানারিশিল্প সাভারে স্থানান্তর, সেখানে যথাযথ অবকাঠামো গড়ে না ওঠা, কাঁচামাল সংগ্রহে জটিলতা ও নতুন বিনিয়োগ না হওয়াসহ নানা কারণে বাজার হারাচ্ছে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য। এ অবস্থায় ২০২১ সালের মধ্যে ৫ হাজার কোটি টাকা রপ্তানি আয়ের লক্ষ্য শুধু কল্পনাতেই থেকে গেলো। এ বছর আয় হয়েছে ৮৪ কোটি ডলার। এর আগের বছর হয়েছিল ৫৩ কোটি ২৩ লাখ ডলার।এ হিসাবে চামড়া রপ্তানির এই সংখ্যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় সাড়ে ১৪ শতাংশ বেড়েছে।
বাংলাদেশ ট্যানারি এসোসিয়েশনের মতে, সাভারে পরিকল্পিত ট্যানারিশিল্প গড়ে না ওঠার আগেই ভুল তথ্য দিয়ে ট্যানারি মালিকদের সেখানে স্থানান্তর করা হয়েছিল। এখানে যেসব ট্যানারি মালিক বিনিয়োগ করেছিলেন তাদের অধিকাংশই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। ট্যানারি ব্যবসার এই সংকট নিরসনে সরকারি সহযোগিতা প্রত্যাশা করছে ট্যানারি এসোসিয়েশন।
ইপিবি পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে আয় হয়েছিল ১০৮ কোটি ৫৫ লাখ ডলার। যা আগের অর্থবছরের তুলনায় ১২ শতাংশ কম। এ অর্থবছর ১৩৮ কোটি ডলার রপ্তানি লক্ষ্য ধরা হলেও তা অর্জন হয়নি। নতুন অর্থবছরে এসেও এক অবস্থা বিরাজ করছে এখানে। ২০১৮ সালের শেষ ছয় মাসে রপ্তানি আয় কমেছে ১৪ দশমিক ১৮ শতাংশ।
জানা গেছে, হাজারীবাগ থেকে সাভারের হেমায়েতপুরের হরিণধরায় ট্যানারি শিল্প স্থানান্তরিত হয়েছে বছর খানেক আগে। নতুন স্থানে প্লট পাওয়া ১৫৫টি ট্যানারি কারখানার মধ্যে মাত্র ৪০টির কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বাকি কারখানাগুলোর অবকাঠামো নির্মাণের কাজ এখনো শেষ হয়নি।
রপ্তানি আদেশ কমার অন্যতম কারণ হিসেবে ট্যানারি মালিকরা বলছেন, সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো না থাকায় এমন অবস্থায় পড়তে হচ্ছে।
বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহীন আহমেদ বলেন, সাভারে ট্যানারি স্থানান্তর হওয়ার ফলে অনেক কারখানা বন্ধ হয়ে যায়। এ ছাড়া নিরবচ্ছিন্ন জ্বালানি ও যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো না থাকায় কাঁচা চামড়া সংগ্রহসহ নানা বিষয়ে বিপাকে পড়তে হয়। সংস্কারের জন্য ট্যানারি মালিকরা ব্যাংক ঋণও পাচ্ছেন না বলে জানান তিনি।
গতবারের মতো এবারও প্রায় ৬০০ কোটি টাকা ঋণ পাচ্ছেন চামড়া ব্যবসায়ীরা। নাটোরের চামড়া ব্যবসায়ী নূরুল ইসলাম নূরু বলেন, করোনার কারণে এবার ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ করতে ভয় পাচ্ছেন।
বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব,রবিউল আলম দৈনিক সংগ্রামকে বলেন,ট্যানারি মালিকরা সরকারের কাছ থেকে ঋণ নিলেও তারা এ টাকা অন্য জায়গায় বিনিয়োগ করেন। তারা আড়তদারদের ঋণ পরিশোধ করেন না। এতে করে ফরিয়ারা চামড়া কিরতে পারেন না। সরকার যদি চামড়া খাতকে বাচাতে চায় তাহলে সরকারি উদ্যোগে বড় ইন্ডাস্ট্রিস গড়ে তোলতে হবে। অথবা বিদেশি বড় কোম্পানিগুলোকে বিনিয়োগে সহায়তা করতে হবে। তা না হলে এভাবে আমাদের চামড়া কুকুর খাবে। রাস্তায় পড়ে নষ্ট হবে। এ শিল্প আমাদের হাত ছাড়া হবে। আমাদের এতিমরা গত বছরও ৩০০ কোটি টাকা থেকে বঞ্চিত হয়েছিল।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com