সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরিগঞ্জ কালনী কুশিয়ারা নদীতে ব্যাপক ভাঙ্গন বানিয়াচং ক্রিকেট ক্লাবের নয়া কমিটির অভিষেক ও পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত  ঠাকুরগাঁওয়ে জ্বালানি তেল  সংকট! পীরগঞ্জে ম্যাটস্ এন্ড নার্সিং ইনস্টিটিউটের উদ্বোধন করেন–বিচারপতি মোঃ নজরুল ইসলাম তালুকদার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মালদ্বীপ প্রবাসীদের ক্যাপ্টেন এ বি তাজুল ইসলাম (অব.) এম পি’র জন্মদিন পালন  সায়হাম গ্রুপের উদ্যোগে ২০ হাজার দরিদ্রের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরনের উদ্যোগ বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যেকূটনীতি এবং মানবাধিকার সংস্থার নেতা নির্বাচিত হলেন সিলেটের রাকিব রুহেল ইভটিজিং এর প্রতিবাদ করায় ৩ ছাত্রের উপর মধ্যযুগীয় কায়দায় হামলা ব্র্যাথওয়েট হতে পারলেন না ‘ট্র্যাজিক হিরো’ পাওয়েল জলবায়ু অর্থ চুক্তিতে বাধা হতে পারে ভূরাজনীতি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে নতুন মাত্রা

এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে নতুন মাত্রা

http://lokaloy24.com/

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে আর্থিক অন্তর্ভুক্তির উদ্দেশ্যে পোস্ট অফিস ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে দেশে বৃহত্তম ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছে ব্যাংক এশিয়া। বর্তমানে ডাক বিভাগের সঙ্গে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারক (এমওইউ)-এর আওতায় সারাদেশে ডিজিটাল পোস্ট অফিস উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে এক হাজারের বেশি পোস্টাল আউটলেট ব্যবহার করে আর্থিক সেবা প্রদান করছে বেসরকারি ব্যাংকটি। এর মাধ্যমে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক দু’ভাবেই সবচেয়ে বড় ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছে ব্যাংকটি।

নতুন এ ব্যবসায়িক ধারণার আওতায় বেসরকারি খাতের ব্যাংকটি বাংলাদেশের ডাক বিভাগের সঙ্গে মিলে পোস্টাল আউটলেটের মাধ্যমে আর্থিক সেবা প্রদান করে ইতোমধ্যে বেশ সাড়া ফেলতে সক্ষম হয়েছে। এই সেবাকে আরও জনবান্ধব করতে ও বৈশ্বিক নেটওয়ার্কিং তৈরির লক্ষ্যে ব্যাংকটি শিগগিরই আন্তর্জাতিক পেমেন্ট কমিউনিটি ইউরোগিরোর সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে। এর ফলে সহজেই প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স পোস্ট অফিসের মাধ্যমে গ্রামীণ মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে যাবে।

ব্যাংক এশিয়ার হেড অব পোস্ট অফিস ব্যাংকিং কাজী মর্তুজা আলী (সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট) নতুন এ সেবাটির বিষয়ে আমার সংবাদকে বলেন, ব্যাংক এশিয়া ২০১৪ সালে সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে আর্থিক অন্তর্ভুক্তির উদ্দেশ্যে এবং ব্যাংক সেবা প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছে দিতে এজেন্ট ব্যাংকিং শুরু করে। এ কার্যক্রমের আওতায় বিভিন্ন ব্যক্তি ও  প্রতিষ্ঠানকে এজেন্ট নিয়োগ করা হয়।

এরপর একে আরো বিস্তৃত করার লক্ষ্যে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার (ইউডিসি) এবং সিটি ডিজিটাল সেন্টারকে (সিডিসি) এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের আওতায় আনা হয়। এরপরও দেখা যায় গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর বড় একটি অংশ ব্যাংক সেবার বাইরে থাকছে। পাশাপাশি ডাক বিভাগের সেবা গ্রহণকারীদের বিভিন্ন কারণে ব্যাংকিং কার্যক্রমে জড়িত হওয়ার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। যেমন— সঞ্চয়পত্র ক্রয় এবং বড় অঙ্কের আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট প্রয়োজন হয়।

সাধারণ মানুষের এসব প্রয়োজনীয়তা মাথায় রেখে এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে নতুন মাত্রা যোগ করে ব্যাংক এশিয়া। প্রথমবারের মতো নতুন সেবা পোস্ট ব্যাংকিংয়ের সাথে পরিচিত হয় দেশবাসী। পোস্ট ব্যাংকিংয়ে আছে সব ধরনের সেবা। এর মাধ্যমে সঞ্চয়ী ও চলতি হিসাব, ডিপিএস, ফিক্সড ডিপোজিটসহ সব ধরনের ব্যাংক হিসাব খুলতে পারছেন গ্রাহক।

একইসাথে যে কোনো প্রতিষ্ঠানের কিস্তি কালেকশন, ঋণ বিতরণ ও রিটার্ন গ্রহণ, আমানত সংগ্রহ এবং বেতন প্রদান করা যাচ্ছে। এছাড়া স্কুল ব্যাংকিং ও সব ধরনের সরকারি-বেসরকারি সামাজিক ভাতা বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিশ্চিত হয়ে সঠিক ব্যক্তির কাছে পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। পোস্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে কৃষিঋণ, এসএমই ঋণসহ সব ধরনের ঋণসেবা দেয়া হচ্ছে বলে জানান ব্যাংকটির এ কর্মকর্তা। একইসাথে সঞ্চয়পত্র ক্রয়সহ ডাক বিভাগের যেসব সেবায় ব্যাংক হিসাবের প্রয়োজন হয়, ব্যাংকে না গিয়ে পোস্ট অফিসে বসেই সেসব সেবা নিতে পারছেন ডাক বিভাগের গ্রাহকরা। এছাড়া রেমিট্যান্স সংগ্রহ, ইউটিলিটি বিল জমা ও ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির প্রিমিয়ামও জমা দিতে পারছেন।

অন্যদিকে ‘ইকেওয়াইসি’ পদ্ধতিতে কোনো ফরম পূরণের ঝামেলা ছাড়াই গ্রামীণ নিরক্ষর মানুষ খুলতে পারছে অ্যাকাউন্ট। মোবাইল নম্বর, এনআইডি কার্ড ও আঙুলের ছাপ দিলেই খুলে যাচ্ছে অ্যাকাউন্ট। টাকা জমা ও উত্তোলনেও  থাকছে একই নিয়ম। চেকবই ও এটিএম কার্ডের পাশাপাশি মোবাইল নম্বর ও আঙুলের ছাপ দিয়ে পোস্ট অফিস এজেন্ট, এটিএম বুথসহ যে কোনো ব্যাংক আউটলেট ও শাখা থেকে লেনদেন করা যাচ্ছে। লেনদেন শেষে মোবাইলে এসএমএস ও প্রিন্টেড রশিদ দিয়ে নিশ্চিত করা হচ্ছে দেনদেনের তথ্য। মোবাইল অ্যাপ ও ইন্টারনেটে ব্রাউজিংয়ের মাধ্যমে করা যাচ্ছে অনলাইন ব্যাংকিং।

দেশের সব পোস্টাল আউটলেটে পোস্ট ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে ২০১৭ সালে পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে পোস্ট ব্যাংকিং সেবা চালু করে ব্যাংক এশিয়া। পরবর্তীতে ২০২০ সালের জুন মাস থেকে পূর্ণাঙ্গভাবে শুরু হয় এ সেবা। এখন পর্যন্ত দেশের এক হাজার পোস্ট অফিস আউটলেটে এ সেবা চালু হয়েছে। চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি এজেন্ট আউটলেটগুলোর মাধ্যমে হিসাব খুলেছে প্রায় ১০ লাখ। এর মধ্যে পোস্ট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে খোলা হিসাবের সংখা এক লাখের বেশি।

এছাড়া মাইক্রো মার্চেন্ট এজেন্টের মাধ্যমে পাড়া-মহল্লার দোকানপাট ও বিপণিবিতান থেকে সেবা নিতে পারছেন গ্রাহক। এসব পয়েন্টে টাকা পেমেন্ট, উত্তোলন ও জমা রাখাও যাচ্ছে। এর ফলে ব্যাংকে গিয়ে সময় নষ্ট না করে হাতের নাগালেই সেবা গ্রহণ করা যাচ্ছে। এই সেবা একদিকে গ্রাহকের সময় বাঁচাচ্ছে, পাশাপাশি ওই সময় প্রোডাক্টিভ কাজে ব্যয় হচ্ছে। এভাই দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে ব্যাংকটি ভূমিকা রাখতে পারছে বলে জানান ব্যাংক এশিয়ার হেড অব পোস্ট অফিস ব্যাংকিং কাজী মর্তুজা আলী।

তিনি বলেন, পোস্ট ব্যাংকিং সেবাকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিতে ব্যাংক এশিয়া শিগগিরই আন্তর্জাতিক পেমেন্ট কমিউনিটি ইউরোগিরোর সঙ্গে যুক্ত হবে। এটি বিশ্বব্যাপী পোস্ট ব্যাংক, ডাক সংস্থা ও পেমেন্ট পরিষেবা প্রদানকারীদের সাথে ব্যাপকভাবে সংযুক্ত। এর মাধ্যমে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাংক হিসেবে ইউরোগিরোর সঙ্গে যুক্ত হতে যাচ্ছে ব্যাংক এশিয়া। বর্তমানে এটি টেস্টিং পিরিয়ডে আছে। আগামী ডিসেম্বরে ইউরোগিরোর সঙ্গে চুক্তির আওতায় রেমিট্যান্স পরিষেবা প্রদানের জন্য ব্যাংকটি সবগুলো পোস্টাল আউটলেটকে বৈশ্বিক পেমেন্ট প্ল্যাটফর্মটির সঙ্গে যুক্ত করবে।

সারা বিশ্বে ইউরোগিরোর পাঁচ লাখেরও বেশি শাখা রয়েছে। ব্যাংক এশিয়া পোস্ট অফিস ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পোস্টাল আউটলেটগুলোকে এই বিশাল নেটওয়ার্কের সাথে সংযুক্ত করবে। এর ফলে প্রবাসীরা দেশে টাকা পাঠানোর জন্য ব্যাংক এশিয়ার মাধ্যমে ইউরোগিরোর বিশাল নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারবেন।

এ সেবার মাধ্যমে পোস্ট অফিসের উদ্যোক্তারা এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের সুযোগ পাচ্ছেন জানিয়ে বাংলাদেশ পোস্ট অফিসের মহাপরিচালক মো. সিরাজ উদ্দিন বলেন, ‘সাধারণ গ্রাহক বাড়ির কাছে একটি ব্যাংক পাচ্ছেন। ডাক বিভাগের উদ্যোক্তারা এজেন্ট ব্যাংকিং করছেন, এতে তাদের উপার্জন বাড়ছে। এর মাধ্যমে ডাক বিভাগ ও ব্যাংক এশিয়ার সাথে মিলে অর্থনৈতিক অন্তর্ভুক্তিতে ভূমিকা রাখছে। ফলে দেশের মানুষের অর্থনৈতিক অন্তর্ভুক্তি ত্বরান্বিত হচ্ছে।’

দেশে প্রথম ২০১৪ সালে এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা চালু করে ব্যাংক এশিয়া। তারপর থেকে চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি সারা দেশে প্রায় ৫ হাজার আউটলেট খুলেছে। এর মাধ্যমে দেশের সবচেয়ে বড় এজেন্ট ব্যাংকিং নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠা করেছে ব্যাংকটি। দেশে সবচেয়ে বেশি এজেন্ট ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট রয়েছে ব্যাংক এশিয়ার।

চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটির এজেন্ট ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টের সংখ্যা প্রায় ৪৫ লাখ। এর মধ্যে চলতি বছরে এজেন্ট ব্যাংকিং অ্যাকাউন্ট খোলা হয়েছে ১০ লাখের বেশি। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যানুসারে, দেশের ব্যাংক খাতে মোট নারী এজেন্ট ব্যাংকিং অ্যাকাউন্টধারীর সংখ্যা প্রায় ৬০ লাখ। তাদের মধ্যে ৫০ শতাংশই ব্যাংক এশিয়ার এজেন্ট অ্যাকাউন্টধারী।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com