এক হাজার টাকার জন্য নারী ভাড়াটিয়াকে ‘পেটালেন’ বাড়ির মালিকের ছেলে!

এক হাজার টাকার জন্য নারী ভাড়াটিয়াকে ‘পেটালেন’ বাড়ির মালিকের ছেলে!

এক হাজার টাকার জন্য নারী ভাড়াটিয়াকে ‘পেটালেন’ বাড়ির মালিকের ছেলে!
এক হাজার টাকার জন্য নারী ভাড়াটিয়াকে ‘পেটালেন’ বাড়ির মালিকের ছেলে!

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি- খুশি বেগম। বয়স ৪৮ এর কোটায়। টাঙ্গাইল শহরের শিমুলতলীতে ভাড়া বাসায় থাকেন। উপার্জনের একমাত্র মাধ্যম অন্যের বাড়িতে কাজ করা।

এমন একজন অসহায় মধ্যবয়সী নারীকে বেধরক পেটানোর অভিযোগ উঠেছে বাড়া বাসার মালিকের ছেলের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় আহত খুশি বেগম বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতেও আতঙ্কিত। বাড়ির বাইরে বের হওয়াটা নিরাপত্তাহীনতা মনে করছেন ওই নারী।

ভুক্তভোগী খুশি বেগমের অভিযোগ, টাঙ্গাইল শহরের শিমুলতলী এলাকায় বাসা ভাড়া দিতে দেরি হওয়ায় বুধবার (২৯ জানুয়ারি) বিকেলে রাস্তা থেকে ধরে নিয়ে তাকে বেধরক পেটান বাসার মালিকের ছেলে রনি, তার ভাই রুবেল, বোন চাদনী ও রনির স্ত্রী শিউলী।

এ ঘটনায় খুশি বেগম বাদি হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের পর থেকে তিনি আরও নিরাপত্তাহীনতা ও আতঙ্কের মধ্যে দিন পার করছেন বলে জানান।

খুশি বেগম জানান, শহরের শিমুলতলী মান্নান উকিলের বাসায় খুশি বেগম, সাজেদা বেগমসহ চার মহিলা বাসা ভাড়া করে থাকতেন। গত তিন মাস আগে সাজেদা বেগমসহ দুজন পালিয়ে যায়। পরে খুশি বেগমের বাসা ভাড়া দিতে কষ্ট হওয়ায় মান্নান উকিলের বাসা ছেড়ে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। গত মাসে বাসা ছেড়ে দেওয়ার সময় খুশি বেগমের কাছে বাসা ভাড়া দাবি করেন মান্নান উকিলের ছেলে রনি। তিন হাজার টাকার মধ্যে দুই হাজার টাকা পরিশোধ করেন খুশি। আর বাকি এক হাজার টাকার পরিবর্তে খুশি বেগমের টিভি রেখে দেন রনি। টাকা দিয়ে টিভি নেওয়ার কথা জানায় খুশিকে।

ভুক্তভোগী ওই নারীর অভিযোগ, গত বুধবার রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় তার কাছে ভাড়ার অবশিষ্ট টাকা দাবি করেন রনি। টাকা দিতে না পারায় রনিসহ পরিবারের সদস্যরা তাকে চুল ধরে টেনে হিচরে তাদের বাসায় নিয়ে যায়। কক্ষের দরজা বন্ধ করে খুশি বেগমের শরীরের বিভিন্ন স্থানে বেধরক পেটায় তিনি। এসময় খুশি বেগমের কাছে থাকা দুই হাজার টাকা ও দুটি কানের দুল রনির পরিবারের সদস্যরা খুলে নেন।

“পরে তিনি কাঁদতে কাঁদতে থানায় অভিযোগ করতে গেলে তাকে হাসপাতালে চিকিৎসার সনদ আনতে পাঠানো হয়। হাসপাতাল থেকে খুশি বেগম সনদ আনার সময় তার হাতে থাকা সনদ ছিনিয়ে নেয় রনিসহ ৭/৮ জন লোক। তারপরও কৌশলে হাসপাতালের নার্সের সহযোগিতায় কিছু ঔষধ লিখে নিয়ে চলে আসেন” বলেন খুশি বেগম।

এ ব্যাপারে খুশি বেগম সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, আমি গরিব মানুষ। আমাকে তারা বেধরক মারধর করেছে। চোখসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে জখম হয়ে আছে। সম্পূর্ণ শরীর ব্যাথা। আমার চলাচল করতে খুব কষ্ট হচ্ছে। আমি কি এর বিচার পাবো না? আমি খুব আতঙ্কে শহর দিয়ে চলাচল করছি। তারা পেলে আমাকে আবার মারধর করবে।

জানতে চাইলে অভিযুক্ত রনি বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, খুশির অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যে। তিনি এসব অভিনয় করছে। আমি তাকে ডেকে ভাড়ার কথা জিজ্ঞেস করেছি মাত্র।

বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থার সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আজাদ বলেন, বিষয়টি আইন বহির্ভুত। আইন নিজ হাতে তুলে নেওয়া ঠিক হয়নি। ভাড়ার টাকার জন্য একজন নারীকে মারধর করা কোনভাবেই উচিৎ হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com