সংবাদ শিরোনাম :
শায়েস্তাগঞ্জে ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক । পুলিশের টহল গাড়িতে ডাকাতি। আমিও সাংবাদিক পরিবারের একজন সদস্য: প্রধানমন্ত্রী । শেরপুরে ভাতার কার্ড দেওয়ার নামে স্বামী পরিত্যক্ত নারীকে ধর্ষণ-থানায় অভিযোগ । বানিয়াচং-হবিগঞ্জ রাস্তার পাশ থেকে নারীর মৃত দেহ উদ্ধার, আটক ১   মাধবপুরে ভারতীয় মদসহ মাদক কারবারী আটক‌ শীতে করোনার দ্বিতীয় প্রবাহ আঘাত হানার আশঙ্কাঃ মাহবুব আলী। হবিগঞ্জে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সভায় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে লাঞ্চিত! পারলে এক দিনের মধ্য পোস্টমর্টেমের রিপোর্ট দেন। ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি), বাংলাদেশ ড. বেনজীর আহমেদ বিপিএম (বার) এর দেয়া গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য।
এইচএসসি পরীক্ষা বাতিল

এইচএসসি পরীক্ষা বাতিল

লোকালয় ডেস্কঃকরোনাভাইরাসের ঝুঁকির কারণে এবার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা না নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এর আগে পঞ্চম ও অষ্টম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছিল। পরীক্ষা না নেয়ায় এবার জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার নম্বরের ভিত্তিতে শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। গতকাল এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ সিদ্ধান্তের তথ্য জানান। শিক্ষার্থীদের কীভাবে মূল্যায়ন করা হবে এ বিষয়ে মতামত দিতে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন করা হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, আসছে নভেম্বরের মধ্যেই কমিটি প্রতিবেদন দেবে। এর ভিত্তিতে ডিসেম্বরে উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশ করা হবে। যাতে জানুয়ারিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু করা যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ে কি প্রক্রিয়ায় ভর্তি করা হবে এ সংক্রান্ত প্রশ্নে শিক্ষামন্ত্রী জানিয়েছেন, এ নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

পর্যালোচনা করেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। যদিও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরীক্ষা ছাড়াই শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হলে বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে তাদের ভর্তিতে জটিলতা দেখা দিতে পারে।
গত ১লা এপ্রিল থেকে এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও করোনা সংক্রমণের কারণে তা আটকে যায়। সাড়ে ১৩ লাখেরও বেশি শিক্ষার্থী পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা সরাসরি গ্রহণ না করে ভিন্ন পদ্ধতিতে মূল্যায়নের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এরা দুটি পাবলিক পরীক্ষা অতিক্রম করে এসেছে। এদের জেএসসি ও এসএসসি’র ফলের গড় অনুযায়ী এইচএসসি’র ফল নির্ধারণ করা হবে। কীভাবে দুই পরীক্ষার ফলাফলের গড় করা হবে এবং উচ্চ মাধ্যমিকে যারা বিভাগ পরিবর্তন করেছে তাদের কীভাবে মূল্যায়ন করা হবে সে বিষয়ে মতামত দিতে একটি বিশেষজ্ঞ কমিটি করে দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সেই কমিটির মত নিয়ে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে এইচএসসি’র চূড়ান্ত মূল্যায়ন ঘোষণা করা হবে, যাতে জানুয়ারি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হতে পারে।
এক প্রশ্নের উত্তরে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, গতবার যারা ফেল করেছে, তাদেরও জেএসসি ও এসএসসি’র ফলের ভিত্তিতে মূল্যায়ন করা হবে।
মন্ত্রী জানান, এবারের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ১০ লাখ ৭৯ হাজার ১৭১ জন নিয়মিত, দুই লাখ ৬৬ হাজার ৫০১ জন অনিয়মিত পরীক্ষার্থী রয়েছে। অনিয়মিত পরীক্ষার্থীদের মধ্যে এক বিষয়ে ফেল করেছিলো ১ লাখ ৬০ হাজার ৯২৯ জন, দুই বিষয়ে ৫৪ হাজার ২২৪ জন এবং সব বিষয়ে ৫১ হাজার ৩৪৮ জন ফেল করেছিলো।
এ ছাড়া ৩ হাজার ৩৯০ জন প্রাইভেট পরীক্ষার্থীরও এবার এইচএসসিতে অংশে নেয়ার কথা ছিল। গতবার পাস করলেও আরো ভালো ফলের জন্য এবার পরীক্ষায় বসতে চেয়েছিলেন ১৬ হাজার ৭২৭ জন শিক্ষার্থী।
মন্ত্রী বলেন, কোভিড-১৯ পরিস্থিতি কখন স্বাভাবিক হবে এবং কখন পরীক্ষা নেয়ার মতো অনুকূল পরিস্থিতি হবে এর কোনো নিশ্চয়তা নেই, এটি আমরা সবাই বুঝতে পারছি। এ রকম ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতিতে কীভাবে পরীক্ষা গ্রহণ করা যায় তার পরিকল্পনা করাও খুব একটা বড় চ্যালেঞ্জ। পরীক্ষা চলাকালে স্বাস্থ্য ঝুঁকি কীভাবে কমানো যায়, বিদ্যমান প্রশ্নপত্র ব্যবহার করে কীভাবে পরীক্ষা নেয়া যায় সে বিষয়টিও ভাবতে হয়েছে। কারণ, একেকজন শিক্ষার্থীকে ৭ বিষয়ে ১৩টি পত্রে পরীক্ষা দিতে হয়।
মন্ত্রী বলেন, পরীক্ষা নেয়ার জন্য কমপক্ষে ৩০-৩২ কর্মদিবসের প্রয়োজন হয়। ২ হাজার ৫৭৯টি পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তুতি নিতে হয়। এমনিতে পরীক্ষা কেন্দ্রে এক বেঞ্চে ?দুইজন শিক্ষার্থীকে বসানোর ব্যবস্থা করা হয়।
কোভিড-১৯ স্বাস্থ্য ঝুঁকি বিবেচনায় এক বেঞ্চে দুইজন পরীক্ষার্থীর আসন রাখা সম্ভব নয়। সেক্ষেত্রে পরীক্ষা নিতে গেলে দ্বিগুণ পরীক্ষাকেন্দ্র নির্বাচন করার প্রয়োজন পড়বে। বিদ্যমান কেন্দ্রভিত্তিক প্রশ্নপত্র প্যাকেট করা হয়েছিল। প্যাকেট ভেঙে নতুন প্যাকেট করারও কোনো সুযোগ নেই। এ ছাড়া কেন্দ্র দ্বিগুণ করতে হলে প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনার জন্য যে জনবল, তাও দ্বিগুণ করতে হবে এবং বর্তমান সময়ে শিক্ষা বোর্ডগুলোর পক্ষে এ উদ্যোগ নেয়াও কঠিন হয়ে পড়বে। শুধু আমাদের জনবল নয়, সেখানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী থেকে শুরু করে প্রশাসনের জনবলের বিষয়ও জড়িত রয়েছে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বিষয় কমিয়ে কিংবা সিলেবাস কমিয়েও হয়তো পরীক্ষা নেয়া যায়, কিন্তু উচ্চ মাধ্যমিকের প্রতিটি বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যে বিষয় বা পত্র কমিয়ে পরীক্ষা নেবো, হয়তো সেই বিষয়ে কোনো পরীক্ষার্থীর অনেক ভালো একটা প্রস্তুতি ছিল। সেই পরীক্ষার্থীও মনে করতে পারে যে সে ক্ষতিগ্রস্ত হলো। অন্যদিকে আমরা পরীক্ষা শুরু করলাম, তখন যদি কোনো পরীক্ষার্থী কোভিডে আক্রান্ত হয় কিংবা যখন পরীক্ষা নেয়া শুরু হচ্ছে তখন পরীক্ষার্থী আক্রান্ত হলো বা তার পরিবারের কেউ আক্রান্ত হলো, তাহলে সেই পরীক্ষার্থীর কী হবে? সে তো তখন নিশ্চয় পরীক্ষা কেন্দ্রে আসতে পারবে না বা আসা উচিত নয়।
মন্ত্রী বলেন, পরীক্ষার্থী, অভিভাবক, শিক্ষক, পরীক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যবস্থাপক, গণমাধ্যমকর্মী, সুশীল সমাজসহ বিভিন্ন অংশীজনের সঙ্গে এ বিষয়ে তারা আলাপ-আলোচনা করেছেন। তার ওপর ভিত্তি করে ২০২০ সালের এইচএসসি পরীক্ষা সরাসরি গ্রহণ না করে একটু ভিন্ন পদ্ধতিতে মূল্যায়নের আমরা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি।
কিন্তু পরীক্ষা না নিয়ে পরীক্ষার্থীদের মূল্যায়নের বিষয়টি শিক্ষা বোর্ডগুলোর জন্য একেবারেই নতুন ধারণা। ফলে কীভাবে মূল্যায়ন করা হলে ফলাফল দেশে এবং বিদেশে গ্রহণযোগ্যতা পাবে এবং শিক্ষার্থীদের পরবর্তী জীবনে এর কোনো বিরূপ প্রভাব পড়বে কি না- তা বিবেচনা করতে হচ্ছে। তিনি বলেন, এসএসসিতে যে যে বিভাগে পাস করে, তাদের অনেকে এইচএসসিতে গিয়ে বিভাগ পরিবর্তন করে। তাদের মূল্যায়ন কীভাবে হবে, সে বিষয়েও সুপারিশ দিতে বলা হয়েছে পরামর্শক কমিটিকে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একজন অতিরিক্ত সচিবকে ওই কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে। আর আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির সভাপতি ও ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যানকে কমিটিতে সদস্য সচিবের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এই বিশেষজ্ঞ কমিটিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বুয়েট, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের একজন করে প্রতিনিধি ছাড়াও কারিগরি এবং মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানদের রাখা হয়েছে।
মন্ত্রী বলেন, জীবনযুদ্ধ চলছে, যারা চাকরিদাতা তারাও ভবিষ্যতে বিষয়টিকে বিবেচনায় নেবেন। এদের অধিকাংশই তো এখনোই চাকরিতে যাচ্ছে না। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়বে। তাদের সমস্যা হওয়ার কথা নয়। জীবনের ঝুঁকি এড়িয়ে সর্বোচ্চ ভালো কী করতে পারি, আমরা সেই চেষ্টা করছি। সব সমস্যার সমাধান করে ফেলতে পারবো তা কিন্তু নয়।
শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত পদ্ধতিগুলোই আমরা অনুসরণ করতে যাচ্ছি। শুধু আমরা এভাবে মূল্যায়ন করছি না নয়, ইন্টারন্যাশনাল বেস্ট প্র্যাকটিস দেখে পরামর্শক কমিটি মতামত দেবে। 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com