ঋণ নিতে ঘুষ ও বিরিয়ানি!

ঋণ নিতে ঘুষ ও বিরিয়ানি!

ঋণ নিতে ঘুষ ও বিরিয়ানি!
ঋণ নিতে ঘুষ ও বিরিয়ানি!

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: দেবতাকে তুষ্ট করতে না পারায় ঋণ হলো না এক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর। এই দেবতা সেই দেবতা নয়। মানুষ নামে দেবতা। ঘুষ-বিরিয়ানি কম হওয়ায় তুষ্ট করতে পারেনি তাদের। অবশেষে মধ্যস্থতায় ঘুষের টাকা ফেরত। এমন অভিযোগ উঠেছে গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্ট নামে ঋণদানকারী সংস্থা ঠাকুরগাঁও কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।

প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার কামাল কাঞ্চনা গ্রামের কামরুল হুদা দীর্ঘ দিন ধরে ভাউলার হাটে মোবাইল ইলেক্ট্রিকের ব্যবসা চালিয়ে আসছেন। ব্যবসা স্বচ্ছল করতে ৩ বছর পূর্বে ১ লক্ষ টাকা ঋণ নেন গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্ট নামে ঋণদানকারী সংস্থার কাছে। সংস্থার শর্ত অনুযায়ী তা পরিশোধ করেন। দ্বিতীয় ধাপে ঋণ গ্রহণের জন্য আবার আবেদন করেন। সংস্থার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাজু ও পিয়ার আলী ওই গ্রহীতার কাছে পূনরায় ঋণ দেয়ার নাম করে ১০ হাজার টাকা ঘুষ দাবী করে। সে অনুযায়ী ৬ হাজার টাকা ঘুষও দেন ওই ব্যবসায়ী।

শুধু তাই নয় তাদের তুষ্ট করতে বিরিয়ানি ভোজেরও আয়োজন করেন। তাতেও তুষ্ট করতে পারেনি। এ ভাবেই কেটে যায় ৪৫দিন। কিন্তু কামরুল ঋণ হবে না জানতে পারে। শেষে উপায় অন্ত না পেয়ে সংস্থার কর্মকর্তার কাছে ঘুষের টাকা ফেরত চায়। এতে উভয়ের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। পরে ভাউলার হাটের ফারুক ট্রেডার্সের মালিক মিজানুর রহমান, ব্যবসায়ী সাহেরুল ইসলাম, সজিব, পসিরসহ প্রায় ১২/১৪ জনের মধ্যস্থতায় রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদের বারান্দায় ১৩ জুন ঘুষের টাকা ফেরত দেয় কর্মকর্তারা।

ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী কামরুল হুদা বলেন ঋণ পেতে কর্মকর্তারা যা যা বলেছে তা সবই করেছি। আমি গরিব মানুষ ব্যবসা করে সংসার চালাই । তারা ঋণ না দিলে আমাকে বলতে পারতো? তাদের পিছে পিছে ধর্না দিতে আমার ব্যবসায় অনেক ক্ষতি হয়েছে। আমি বর্তমানে খুবই মানবেতর দিন পার করছি। পূঁজি না থাকায় ব্যবসা চলছে না। এ অবস্থায় আমার আতœ হত্যা ছাড়া কোন উপায় নেই। একই কথা বলেন কামরুলের স্ত্রী ইতি আক্তার। গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টের কর্মকর্তা

রাজুর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে কথা বলতে রাজি হননি তিনি। অপর কর্মকর্তা পিয়ার আলীর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন তার বাসায় দাওয়াত খাওয়ায় তাকে টাকা ফেরৎ দেয়া হয়েছে। এরপর তিনি উর্দ্ধতন কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করার কথা বলেন।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম এ প্রসঙ্গে বলেন আমি সেদিন ঢাকায় ছিলাম। তবে বিষয়টি শুনেছি। সংস্থা কর্তৃপক্ষের এ ধরনের কাজ করা ঠিক হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com