সংবাদ শিরোনাম :
অর্থমন্ত্রীর কঠোর সমালোচনা করলেন মতিয়া চৌধুরী ‘আর কতদিন বাংলাদেশ এই বোঝা বহন করবে’- প্রধানমন্ত্রী ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিল আইএইএ, ক্ষুব্ধ ইসরাইল বুকে উঠে জ্বীন টেনে বের করতে গিয়ে প্রবাসীর স্ত্রীকে মেরেই ফেললো কবিরাজ দম্পতি! ৮ম শ্রেণীর ছাত্রীকে বাথরুমে ধর্ষণরত অবস্থায় প্রধান শিক্ষককে দেখে ফেলে আরেক ছাত্রী! ভাইরাল হল মুসলিম নারীর টুইট মিসরের বিচারের জন্য যা যা করা দরকার তা করব : এরদোগান ঘরে নামাজরত স্ত্রী, মসজিদে নামাজ পড়াতে গেলেন মুফতী, মৃত্যু দুই ছেলের স্ত্রীর সাথে অন্তরঙ্গ ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে দিল স্বামী! সোহেল তাজকে নিয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতার বিস্ফোরক স্ট্যাটাস
ঈদের ৪র্থ দিনেও পর্যটকে মুখরিত সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

ঈদের ৪র্থ দিনেও পর্যটকে মুখরিত সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

ঈদের ৪র্থ দিনেও পর্যটকে মুখরিত সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান
ঈদের ৪র্থ দিনেও পর্যটকে মুখরিত সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ): ঈদুল ফিতরের ছুটিতে গতকাল ৪র্থ দিনেও পর্যটকে মুখরিত চুনারুঘাটের সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান সহ বিনোদন কেন্দ্রগুলো। প্রাকৃতিক অপরূপ সৌন্দর্য্যরে লীলাভূমি সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান ও রেমা-কালেঙ্গা অভয়ারণ্যে পর্যটকদের ভিড়ে মুখরিত।

পর্যটকদের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ, বিজিবি, আনসার সদস্য ও ভলন্টিয়ার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। নিয়োজিত রয়েছে টুরিস্ট পুলিশ সদস্যও।

সাতটি ছড়ার সমন্বয়ে গঠিত সাতছড়ির সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে এবার পর্যটকের সংখ্যা গত বছরের চেয়ে অনেক বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে।

জানা গেছে, এ বছর পরিবেশবান্ধব পর্যটন ব্যবস্থাপনায় আগত পর্যটকদের জন্য টুরিস্ট সপ, বসার বেঞ্চ, বন্য প্রাণীর আবাসস্থল, ট্রেইল সংস্কার, দোলনা, বিলবোর্ড, টয়লেট, টাওয়ার, ইত্যাদি নতুন সংযোজন করা হয়েছে। এছাড়া ফরেস্ট গেস্ট হাউজ, স্টুডেন্ট ডরমেটরী, ইন্টারপিটিশন সেন্টার ও ইকো কটেজগুলো সুন্দর করে সাজানো হয়েছে।

পর্যটকদের সুবিধার্থে মেইন গেটের সামনে রাখা হয়েছে টিকেট কাউন্টার। এখানে প্রাপ্ত বয়স্ক ৩০/-, অপ্রাপ্ত/ছাত্র ২০/- ও পার্কিং ২৫/- এবং পিকনিক স্পট ব্যবহারের জন্য প্রতিজন ১০/- জমা দিয়ে টিকেট কিনতে হয়। উদ্যানে বেড়ানোর জন্য রয়েছে দক্ষ ইকো গাইড। বাড়ানো হয়েছে জনবল।

পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য ঈদের দিন থেকে পরবর্তী ৫ দিনের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়েছে ২০ জন আনসার সদস্য। তাদের পাশাপাশি পর্যটক সহায়ক পুলিশ, বিজিবি টহল এবং ভলান্টিয়ার তো রয়েছেই।

এ ব্যাপারে সাতছড়ি রেঞ্জ কর্মকর্তা মাহমুদ হোসেন জানান, আমরা পর্যটকদের কথা চিন্তা করে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা বাড়ানো সহ নিরাপত্তার জন্য সব ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। এ জন্য এ বছর গতবারের চেয়ে পর্যটকের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে।

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান জীব-বৈচিত্রে ভরপুর। ১৯০ প্রজাতির গাছপালার মধ্যে রয়েছে জাম, সেগুন, কড়ই, জারুল, বহেরা, হরতকি, পাম, গর্জন, চাপালিশ ইত্যাদি। ১৪৯ প্রজাতির পাখির মধ্যে রয়েছে ধনেশ, ময়ুর, বন মোরগ, ময়না, টিয়া, শালিক, মাছরাঙ্গা ইত্যাদি।

রয়েছে ১৮ প্রজাতির সরীসৃপ, ২৪ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, ৬ প্রজাতির উভচর প্রাণী। এদের মধ্যে বানর, হনুমান, চশমা বানর, বন বিড়াল, মেছো বাঘ ইত্যাদি। এছাড়াও রয়েছে ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের ২৪/২৫টি উপজাতি পরিবার।

উপজাতি লোকেরা তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি রক্ষায় কাপড় বুনন ও পার্শ্ববর্তী চা বাগানে কাজ করে তাদের জীবন-জীবিকা চালাচ্ছে। এদিকে উপজেলার রেমা কালেঙ্গা অভয়ারণ্যেও পর্যটকদের নিরাপত্তা ও সুবিধা বাড়ানো হয়েছে। এছাড়া উপজেলার ২৪টি চা বাগান, উপজাতি, পল্লী ও সীমান্ত এলাকায়ও পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com