ইদুর-বাদুড় খেয়ে বেঁচে আছেন যারা!

ইদুর-বাদুড় খেয়ে বেঁচে আছেন যারা!

ইদুর-বাদুড় খেয়ে বেঁচে আছেন যারা!
ইদুর-বাদুড় খেয়ে বেঁচে আছেন যারা!

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ ভারতের খয়রাশোলের রসা গ্রামে বেদ সম্প্রদায়ের পাঁচ পরিবার বাস করে। জঙ্গলে ইঁদুর, বাদুড় বা কোনো পাখি শিকার ও ভিক্ষাবৃত্তি করে ওই পরিবারের সদস্যদের জীবন চলে।

যক্ষ্মার জীবাণুর উপস্থিতিও আছে সেখানে। সরকারি তথ্য অনুযায়ী, সেখানে যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়ে একজন সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। এ ছাড়া আরও একজন আক্রান্ত অবস্থায় রয়েছেন। তবে কয়েক মাস আগে এ বিষয়ে সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর প্রশাসন কিছুটা তৎপর হয়। আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

পরিবারগুলোর সদস্যরা জানান, এখনো অভাব রয়েছে। শিকার ও ভিক্ষাবৃত্তি এখনো তাদের খিদে মেটানোর প্রধান উপায়। তবে প্রশাসন এখন কিছুটা হলেও তাদের পাশে থাকার চেষ্টা করছে।

সেখানকার নির্বাচিত পঞ্চায়েত সদস্য বিদ্যুৎ ঘোষ জানান, তারা যাতে দুই বেলা খেতে পায় সেদিকে প্রশাসন নজর রেখেছে। তবে মূল সমস্যা হলো, আর্থ-সামাজিক ও জাতিগত সমীক্ষায় ওই পরিবারগুলোর নাম না থাকা। আর সে কারণেই খাদ্য সুরক্ষার আওতায় তাদের আসার সুযোগ মিলছে না।

বিষয়টি প্রশাসনের নজরে রয়েছে বলেও জানান তিনি।

স্থানীয় সূত্রে খবর, বেদ সম্প্রদায়ের অর্জুন বেদ কয়েক দশক আগে খয়রাশোলের রসা গ্রামে এসে বসবাস শুরু করেন। অর্জুনের চার ছেলেমেয়ে। সেখানে তারা আলাদা আলাদা থাকেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, তিন বছর আগে ভোটার কার্ড পেয়েছেন তারা। হতদরিদ্র এই পরিবারগুলোর জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে এপিএল কার্ড (এবোভ দ্য পোভার্টি লাইন)। তাই দুই টাকার পরিবর্তে প্রতি কেজি চাল কিনতে হয় ১৩ টাকা দরে। কিন্তু এত বেশি দামে চাল কেনার ক্ষমতা তাদের নেই। তাই এক প্রকার বাধ্য হয়েই বনে শিকার ও ভিক্ষা করতে হচ্ছে তাদের।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com