সংবাদ শিরোনাম :
‘হাওয়া’ ছবিতে বন্য প্রাণী আইন লঙ্ঘিত হয়েছে, দাবি বন্য প্রাণী অপরাধ দমন ইউনিটের আগামীতে সিলেট-নিউইয়র্ক সরাসরি ফ্লাইট: বিমান প্রতিমন্ত্রী কাতার বিশ্বকাপ একদিন এগিয়ে আনলো ফিফা ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত সমুদ্রবন্দরে, বৃষ্টির পূর্বাভাস শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে ভাবছে সরকার : শিক্ষামন্ত্রী অটোরিকশা থেকে লাফ দিয়ে পড়ে মারা গেলেন শায়েস্তাগঞ্জে স্কুল শিক্ষিকা সুপ্তা বৈশ্বিক মন্দায়ও অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশ ভালো আছে : সিলেটে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পদ্মা সেতু হয়ে টুঙ্গিপাড়ায় গেলেন প্রধানমন্ত্রী নবীগঞ্জে গ্রামীণফোনের নেটওয়ার্ক বিড়ম্বনায় গ্রাহকরা মাকে খুন করে লাশের পাশেই রাত কাটালেন ছেলে

আরও খারাপ হতে পারে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি

২০১৮ সালে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের স্রোত কমছে না। সম্প্রতি অক্সফাম সতর্ক করে বলেছে, বাংলাদেশের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্বাস্থ্যকর এবং ঘনবসতিপূর্ণ পরিবেশে এভাবে রোহিঙ্গারা আসতে থাকলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে।

রোহিঙ্গাদের নিয়ে চলমান পরিস্থিতি দ্রুত মোকাবেলা করতে এবং একটি দীর্ঘস্থায়ী সমাধান বের করতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশের সঙ্গে জাতিসংঘ এবং বিশ্ব নেতাদের কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে দাতা সংস্থা অক্সফাম।

রোহিঙ্গাদের নিজেদের দেশের নাগরিক হিসেবে স্বীকার করে না মিয়ানমার। তাদেরকে অবৈধ অভিবাসী হিসেবে উল্লেখ করা হয়। মিয়ানমারের মোট জনসংখ্যা ৬ কোটি। দেশটিতে ১৩ লাখ রোহিঙ্গার বাস ছিল। কিন্তু সেনাবাহিনীর অত্যাচার, নির্যাতন থেকে পালিয়ে বাঁচতে অর্ধেকের বেশি রোহিঙ্গাই নিজেদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছে।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর বেশ কয়েকটি চেক পোস্টে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে অভিযান শুরু করে সেনাবাহিনী। শুদ্ধি অভিযানের নামে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালায় সেনারা। তারা রোহিঙ্গাদের বাড়ি-ঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে, নারীদের ধর্ষণ করেছে, নির্বিচারে বহু মানুষকে হত্যা করেছে।

সেনাবাহিনীর নির্যাতন থেকে বাঁচতে ৬ লাখ ২০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। সেনাবাহিনীর হাতে ২৫ আগস্ট থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কমপক্ষে ৯ হাজার রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন।

রাখাইনে সহিংসতা শুরু হওয়ার পর থেকেই আন্তর্জাতিক চাপে রয়েছে মিয়ানমার। আন্তর্জাতিক চাপ এবং রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধনযজ্ঞ চালানোর অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেতে মিয়ানমার সরকার অঙ্গীকার করেছিল যে তারা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেবে।

কিন্তু রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের তরফ থেকে শক্তিশালী কোনো লক্ষণই দেখা যাচ্ছে না এবং সে ক্ষেত্রে মিয়ানমার সরকারের সদিচ্ছারও অভাব রয়েছে, এছাড়া খুব কম সংখ্যক রোহিঙ্গাই বিশ্বাস করেন যে, মিয়ানমার তাদের ফিরিয়ে নেবে। তারা মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার বিষয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com