সংবাদ শিরোনাম :
শুল্ক ফাঁকির শতাধিক বিলাসবহুল গাড়ি এখন সিলেটে! দুবাইয়ে চাকরি দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত ॥ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা অবশেষে আবর্জনামুক্ত হচ্ছে হবিগঞ্জ শহরে আধুনিক স্টেডিয়ামের পাশ হবিগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত নেতাকর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা অপরাধ কর্মকাণ্ড রোধে সতর্ক পুলিশ শাহজীবাজার মাজারে প্রশাসনের আদেশ অমান্য করে কাফেলার আয়োজন সংবাদ প্রকাশের পর গার্নিং পার্কে মিনি পতিতালয়ের সন্ধান ডিবির অভিযানে ৫ কলগার্লসহ ৩ খদ্দর আটক কোরেশনগরে হোটেল যুবরাজ থেকে লাশ উদ্ধার ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা ছেলের বিয়ের দাওয়াতে বের হয়ে বাড়ি ফেরা হলো না মায়ের

আরও খারাপ হতে পারে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি

২০১৮ সালে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হতে পারে। মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের স্রোত কমছে না। সম্প্রতি অক্সফাম সতর্ক করে বলেছে, বাংলাদেশের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্বাস্থ্যকর এবং ঘনবসতিপূর্ণ পরিবেশে এভাবে রোহিঙ্গারা আসতে থাকলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে।

রোহিঙ্গাদের নিয়ে চলমান পরিস্থিতি দ্রুত মোকাবেলা করতে এবং একটি দীর্ঘস্থায়ী সমাধান বের করতে মিয়ানমার ও বাংলাদেশের সঙ্গে জাতিসংঘ এবং বিশ্ব নেতাদের কাজ করার আহ্বান জানিয়েছে দাতা সংস্থা অক্সফাম।

রোহিঙ্গাদের নিজেদের দেশের নাগরিক হিসেবে স্বীকার করে না মিয়ানমার। তাদেরকে অবৈধ অভিবাসী হিসেবে উল্লেখ করা হয়। মিয়ানমারের মোট জনসংখ্যা ৬ কোটি। দেশটিতে ১৩ লাখ রোহিঙ্গার বাস ছিল। কিন্তু সেনাবাহিনীর অত্যাচার, নির্যাতন থেকে পালিয়ে বাঁচতে অর্ধেকের বেশি রোহিঙ্গাই নিজেদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছে।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে পুলিশ ও সেনাবাহিনীর বেশ কয়েকটি চেক পোস্টে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে অভিযান শুরু করে সেনাবাহিনী। শুদ্ধি অভিযানের নামে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতন চালায় সেনারা। তারা রোহিঙ্গাদের বাড়ি-ঘর আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়েছে, নারীদের ধর্ষণ করেছে, নির্বিচারে বহু মানুষকে হত্যা করেছে।

সেনাবাহিনীর নির্যাতন থেকে বাঁচতে ৬ লাখ ২০ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। সেনাবাহিনীর হাতে ২৫ আগস্ট থেকে ২৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কমপক্ষে ৯ হাজার রোহিঙ্গা নিহত হয়েছেন।

রাখাইনে সহিংসতা শুরু হওয়ার পর থেকেই আন্তর্জাতিক চাপে রয়েছে মিয়ানমার। আন্তর্জাতিক চাপ এবং রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধনযজ্ঞ চালানোর অভিযোগ থেকে অব্যাহতি পেতে মিয়ানমার সরকার অঙ্গীকার করেছিল যে তারা রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেবে।

কিন্তু রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের তরফ থেকে শক্তিশালী কোনো লক্ষণই দেখা যাচ্ছে না এবং সে ক্ষেত্রে মিয়ানমার সরকারের সদিচ্ছারও অভাব রয়েছে, এছাড়া খুব কম সংখ্যক রোহিঙ্গাই বিশ্বাস করেন যে, মিয়ানমার তাদের ফিরিয়ে নেবে। তারা মিয়ানমারে ফিরে যাওয়ার বিষয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com