আমার জীবনে এত সাংবাদিক দেখিনি: বাংলাদেশ কোচ

আমার জীবনে এত সাংবাদিক দেখিনি: বাংলাদেশ কোচ

আমার জীবনে এত সাংবাদিক দেখিনি: বাংলাদেশ কোচ
আমার জীবনে এত সাংবাদিক দেখিনি: বাংলাদেশ কোচ

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক- গতকাল বাংলাদেশে পা রেখেছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের নতুন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। আজ বুধবার সকালে দলের সঙ্গে কন্ডিশন ক্যাম্পে যোগ দেন দলের এ হেড কোচ। ডমিঙ্গোর সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচ চার্ল ল্যাঙ্গাভেল্টও। ক্যাম্পে এসে ক্রিকেটারদের পরিচিতি আলাপ শেষ করে মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলেন ডমিঙ্গো।

মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমামের সঙ্গে দুজনই নির্ধারিত সময়ে (সকাল সাড়ে ১০ টা) সম্মেলন কক্ষে উপস্থিত হলেন। ততক্ষণে সাংবাদিকদের পদচারণায় মুখরিত বৃহদাকার কক্ষ। দেশের প্রায় প্রতিটি সংবাদ মাধ্যম থেকেই প্রতিনিধিরা বহুকাঙ্খিত কোচের মুখ থেকে দেশের ক্রিকেটে নিয়ে আগামির পরিকল্পনা শুনতে হাজির হয়েছেন। আধিক্য এতটাই বেশি কেউ কেউ দাঁড়িয়েও প্রশ্নোত্তর পর্বে অংশ নিয়েছেন।

আর ঠিক এই বিষয়টিই বিষ্মিত করেছে লাল সবুজের ক্রিকেটের এই প্রধান শিক্ষককে। দীর্ঘ কোচিং ক্যারিয়ারে এত সাংবাদিক তিনি যে দেখেননি! তাতে বিস্ময় ছিল তার অবয়বেও। তবে সেই বিষ্ময়ে মুখের হাসি উবে যায়নি। সংবাদ মাধ্যমের করা প্রতিটি প্রশ্নের উত্তরই দিয়েছেন স্মিত হেসে। এমনকি জীবনে এই প্রথম এত সাংবাদিকের মুখোমুখি হয়েছেন সেই কথাটিও বলেছেন চওড়া হাসিতে।

শুধু আজকের এই সংবাদ সম্মেলনেই কেন? গতকাল দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে লম্বা ফ্লাইটে ঢাকায় নামার পরে সংবাদ মাধ্যমের যে সংখ্যাটি দেখেছেন সেই বিস্ময় আজও কাটিয়ে উঠতে পারেননি।

বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে কাজ করা সম্পর্কে ডমিঙ্গো বলেন, ‘২০০৪ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে আমি বাংলাদেশে এসেছিলাম, অবশ্যই অনেক আগের কথা। সত্যি বলতে ক্রিকেট নিয়ে এদেশের মানুষের আগ্রহ এতটাই প্রবল যে আমাকে এটি ভীষণভাবে নাড়া দিয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকার কোনো প্রেসকনফারেন্সে আপনি সর্বোচ্চ ৮-৯ জন প্রতিবেদক দেখবেন। আমি আমার জীবনে এত প্রতিবেদক দেখিনি। গতকাল বিমানবন্দরে প্রায় ১শত প্রতিবেদক ছিল। পৃথিবীর এই অংশের এই বিষয়টি আমাকে আকর্ষণ করে।’

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পারফরম্যান্সের প্রশংসা করে ডমিঙ্গো বলেন, ‘আমি তো ভেবেছিলাম বাংলাদেশ সপ্তম হয়েছে। তবে সাত বা আটের মধ্যে তেমন ফারাক নেই। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ অনেক ভালো ক্রিকেট খেলেছে। অন্তত সাত বা আটে থাকার চেয়ে অনেক ভালো খেলেছে তারা। বিশ্বকাপে ওদের অনেক ইতিবাচক বিষয় আমি খেয়াল করেছি। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে জয়টা পেলেই অবস্থান আরও ভালো হতো।’

প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো বলেন, ‘বাংলাদেশে কাজ করাটা বেশ চ্যালেঞ্জিং। কোচ হিসেবে যদি আপনি যদি জানেন আপনার দায়িত্ব কি তবে কাজটা অনেক সহজ হয়ে যায়। আমিও এটা উপভোগ করি। এদেশের ক্রিকেট নিয়ে সমর্থকদের প্রত্যাশা বেশি। আমার প্রধান কাজ এখন ক্রিকেটারদের সাথে ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলা। বাংলাদেশ কিন্তু খারাপ দল না। বিশ্বকাপে ভালো করেছে। ফলাফল যাই হোক না কেন বাংলাদেশ কিন্তু ইতিবাচক ক্রিকেট খেলেছে। সবসময় ফলাফল দিয়ে সবকিছু বিচার করা যায় না।’

অন্যদিকে পেস বোলিং কোচ চার্ল ল্যাঙ্গাভেল্টও শুনিয়েছেন আশার কথা। বলেন, ‘এই উপমহাদেশে উইকেট গুলো স্পিন সহায়ক হয়ে থাকে। সেই দিক দিয়ে এখানে কাজ করাটা বেশ চ্যালেঞ্জিং। নতুন বলে বল করাটাও কঠিন। বোলিংয়ের টেকনিক্যাল দিকগুলো জানতে হয়। ৫০ ওভারের ক্রিকেট বলুন আর টেস্ট ক্রিকেট বলুন নতুন বলে বল করাটা গুরুত্বপূ। পেস বোলিংয়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো লাইন-লেন্থ ঠিক রেখে বল করা। এগুলো নিয়েই আগে কাজ করব।’

আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ও জিম্বাবুয়েকে নিয়ে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ দিয়ে শুরু হবে নতুন এই দুই কোচের বাংলাদেশ যাত্রা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com