আবরার খুনের বিচার চান আসামীদের পরিবারও

আবরার খুনের বিচার চান আসামীদের পরিবারও

আবরার খুনের বিচার চান আসামীদের পরিবারও
আবরার খুনের বিচার চান আসামীদের পরিবারও

বুয়েট ছাত্র আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা মামলার বিচার চান অনিক সরকার (২২) ও মেহেদী হাসান রবিন (২২) এর পরিবারও।

এজাহারভুক্ত ১৯ আসামির মধ্যে এই দুই আসামির বাড়ি রাজশাহী। তারা দুইজনই ২০১৫ ব্যাচের ছাত্র। শেরে বাংলা হলের আবাসিক ছাত্র ছিলেন রবিন ও অনিক।

এদের মধ্যে মামলার তিন নম্বর আসামি অনিক সরকারের বাড়ি মোহনপুর উপজেলার বড়ইকুড়ি গ্রামে। তিনি কাপড় ব্যবসায়ী আনোয়ার সরকারের ছেলে। অনিক সরকার বুয়েট ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক।

আর চার নম্বর আসামি মেহেদী হাসান রবিনের বাড়ি পবা উপজেলার কাটাখালি পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের পূর্ব কাপাসিয়ায়। তিনি স্কুলশিক্ষক মাকসুদ আলীর একমাত্র ছেলে। মেহেদী হাসান রবিন বুয়েট ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

এদিকে আবরার হত্যাকাণ্ডের পর রাজশাহীতে আলোচনায় আসেন অনিক ও রবিন। তবে উভয় পরিবার তাদের সন্তানদের এ ধরনের ন্যাক্কারজনক কর্মকাণ্ডে হতাশ। সন্তানরা যদি সত্যিই দোষী হয় তবে তাদের বিচার চান পরিবারের সদস্যরা।

কাটাখালি পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আসাদুজ্জামান আসাদ রাইজিংবিডিকে বলেন, এলাকায় খুব নিরীহ ও শান্ত ছেলে হিসেবে পরিচিত রবিন। তিনি এলাকার ছেলেদের সঙ্গে তেমন মিশতেন না। রবিন রাজনীতির সঙ্গে জড়িত সে বিষয়টিও এলাকার কেউ জানতেন না।

আসাদ আরও বলেন, রবিনের দাদা ও চাচা দুজনেই জামায়াতে ইসলামির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। রবিনের দাদা মমতাজ উদ্দিন জামায়াতের প্রার্থী হিসেবে একবার কাউন্সিলর নির্বাচনও করেছেন। আর চাচা ইমরান আলী সক্রিয়ভাবে জামায়াতের রাজনীতি করেন। বর্তমানে তার বিরুদ্ধে চারটি নাশকতার মামলা রয়েছে।

আসাদ বলেন, রবিনের বাবা মাকসুদ আলী পার্শ্ববর্তী পুঠিয়া উপজেলার ভারুয়াপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক। তবে বর্তমানে তিনি স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য।

রবিনের বাবা মাকসুদ আলী রাইজিংবিডিকে বলেন, আমি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। আমার বাবা ও ভাই এক সময় জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকলেও এখন তারা নিষ্ক্রিয়। কলেজের চাকরি নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে আমার ভাইকে চারটি নাশকতার মামলার আসামি করা হয়েছে।

মাকসুদ আরো বলেন, রবিন বুয়েটে ভর্তি হওয়ার পর রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েছে-তা বছর খানেক আগে জানতে পেরেছি। তাকে রাজনীতি না করার জন্য বলা হয়েছে। কিন্তু সে শুনে নি। রবিন যদি এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকে তবে তার সাজা হবে। এতে আমাদের কিছু বলার নেই।

অপরদিকে আবরার হত্যা মামলার তিন নম্বর আসামি অনিকের বাবা আনোয়ার হোসেন সরকার এলাকায় একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। রয়েছে কাপড়সহ পেট্রোলপাম্প ও সারের ডিলারের ব্যবসা। দুই ভাইয়ের মধ্যে ছোট অনিক। নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডে হতবাক অনিকের পরিবারও। এসএসসি পরীক্ষার পর থেকে অনিক ঢাকাতেই লেখাপড়া করছে। অনিক ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল তা জানেন না তার পরিবারের সদস্যরা।

মোহনপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক রাইজিংবিডিকে বলেন, অনিক যে বুয়েটের ছাত্রলীগের নেতা আমরা তা কখনোই শুনিনি। গণমাধ্যমের খবর দেখে আমরা জানতে পারি অনিক ছাত্রলীগ করেন।

অনিকের এক মামা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত বলে জানিয়ে রাজ্জাক বলেন, তার বাপ চাচারা সবাই বিএনপি করেন। তিনি কিভাবে ছাত্রলীগ করেন। তাকে পদ দেয়ার আগে তার পরিবারের সদস্যদের ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে দেখার প্রয়োজন ছিল।

অনিকের বাবা আনোয়ার হোসেন সরকার রাইজিংবিডিকে বলেন, কারও সন্তান যেন এমন না হয়। এমনটা না করে। আমি আশা করব অনিকের মত আর কেউ যেনো ভুল পথে না যায়। আইন সবার জন্য সমান। আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। আমার ছেলে অপরাধী হলে প্রচলিত আইনে তার যে সাজা হবে আমি মেনে নেব।

নিজে কোন রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয় দাবি করে আনোয়ার হোসেন বলেন, অনিক রাজশাহীতে থাকা অবস্থায় কোনো রাজনীতি করত না। কারো সাথে তেমন মিশতোও না। কি করে সে রাজনীতিতে প্রবেশ করলো তা জানি না। আমরা জানি অনিক সেখানে পড়ালেখা করছে। যখন জানতে পারলাম অনিক এক ছাত্রকে হত্যা করেছে, সেই দায়ে তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আমারা অবাক হয়ে গেছি। কখনো ভাবিনি আমার ছেলে কাউকে খুন করবে।

পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, অনিক সরকারের ডাক নাম অপু। তিনি ছোট থেকেই মেধাবী। মোহনপুর কেজি স্কুল থেকে পঞ্চম শ্রেণীতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়ে মোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ভর্তি হন। অষ্টম শ্রেণীতেও ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পান তিনি। ২০১৩ সালে একই বিদ্যালয় হতে জিপিএ ৫ পেয়ে এসএসসি পাস করেন। এরপর ঢাকা নটরডেম কলেজে ভর্তি হন এবং জিপিএ ৫ পেয়ে ২০১৫ সালে এইচএসসি পাস করেন। একই সালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ভর্তি হন। তিনি মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চতুর্থবর্ষের ছাত্র।

অন্যদিকে রবিন বাবার স্কুল থেকেই এসএসসি পাশ করেন। এরপর রাজশাহী নিউ গভ. ডিগ্রী  কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করে বুয়েটে ভর্তি হন। আর মাত্র সাত মাস পরেই রবিন পাশ করে বের হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার খবরে রবিনের পরিবারেও নেমে এসেছে হতাশার ছাপ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com