আপনার পেঁয়াজ কেনার ক্ষমতাটা তো আছে- কাদের

আপনার পেঁয়াজ কেনার ক্ষমতাটা তো আছে- কাদের

আপনার পেঁয়াজ কেনার ক্ষমতাটা তো আছে- কাদের
আপনার পেঁয়াজ কেনার ক্ষমতাটা তো আছে- কাদের

পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, আপনার কেনার ক্ষমতাটা তো আছে।

বুধবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

দীর্ঘদিন ধরে বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকার কতটা কঠোর বা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থতা আছে কিনা- প্রশ্নে কাদের বলেন, দেখুন বাংলাদেশে কি মানুষের ক্রয়ক্ষমতা খুব দুর্বল, কেউ কি খুব অভাবে আছে, না খেয়ে মারা যাচ্ছে বা কোনো একটা বাজারে হয়তো ঘাটতি, সেজন্য কি এমন কোনো দুর্ভিক্ষের পদধ্বনি আছে?

তাই বলে কি আড়াইশ টাকা পেঁয়াজের কেজি হবে- প্রশ্নে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আপনার কেনার ক্ষমতাটা তো আছে।

এসময় সাংবাদিকেরা বলেন, সবার আছে, কার আছে? আমাদের নেই। ২৫ টাকার কেজি আড়াইশ টাকা হতে পারে না।

তখন কাদের বলেন, এটা হতে পারে না। এটা অস্বাভাবিক। একটা অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে, এ অবস্থা স্বাভাবিক হতে হয়তো কিছু সময় লাগবে, এটা ঠিক হয়ে যাবে। কিছু পরিস্থিতি অস্বাভাবিক হয়েছে সেটা অস্বীকার করে লাভ নেই। যেটুকু কন্ট্রোলে নেই সেটুকু কন্ট্রোলে আনার জন্য সরকার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

শুদ্ধি অভিযান নিয়ে এক প্রশ্নে দলের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিভিন্ন জনের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান চলছে সময় মতো দেখবেন। শুদ্ধি অভিযান স্থিমিতও হয়নি, কোনো শৈথিল্যও হয়নি।

এর আগে ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাস সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎ প্রসঙ্গে কাদের বলেন, আমাদের কিছু প্রকল্প আছে সেগুলোর কাজ এগিয়ে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেছেন তিনি (ভারতীয় হাইকমিশনার)। কুমিল্লার ময়নামতি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল- এগুলো বড় প্রকল্প। এছাড়াও ফেনী নদীর ওপর একটা সেতুও শেষ পর্যায়ে। খাগড়াছড়িতে আরো কিছু প্রকল্প আছে; এগুলো নিয়ে আলাপ হয়েছে।

পুশ ইন নিয়ে আলোচনা না হলেও ওবায়দুল কাদের বলেন, উনি এমনই একটা বিষয় বললেন যে, প্রধানমন্ত্রী গেলেন এটা নিয়ে ভারত বিরোধী একটা প্রোপাগান্ডা, এটার কারণ ও যুক্তি কী? উনিও বললেন, এমওইউ-কে কেন চুক্তি বলা হচ্ছে। এমওইউ তো ওপেন সিক্রেট।

‘এমওইউ নিয়ে ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকার একটি প্রতিবেদন প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলেও ভারতীয় হাই কমিশনার জানিয়েছেন, ওরা একটি রিপোর্ট করেছে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, এনআরসি নিয়ে তারা বারবার বলে আসছে উদ্বিগ্ন হবার মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি, ঘটবে না। ভারত সরকার স্বয়ং প্রাইম মিনিস্টার আশ্বস্ত করেছেন, সুতরাং এ নিয়ে আমরা আর প্রশ্ন করে বিব্রত করতে চাই না।

‘আমাদের বাইল্যাটারাল রিলেশনশিপটা ভালো, চমৎকার পর্যায়ে আছে। কাজেই যেকোনো সমস্যা হলে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে পারবো। বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক অনেক উচ্চতায়, এসময়ে আমাদের মধ্যে কোনো প্রকার টানাপোড়েন নেই। যে কারণে কোনো কিছু বৈরিতার সৃষ্টি করে না,’ যোগ করেন তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com