আটক নরপশুদের জবানবন্দীতে বেরিয়ে এলো শিশু মিমকে ৭ জন মিলে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা

আটক নরপশুদের জবানবন্দীতে বেরিয়ে এলো শিশু মিমকে ৭ জন মিলে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা

 

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি:
একে একে সাতজন ধর্ষণ করে শিশু মীমকে। এরপর গলা টিপে হত্যা করে তারা। ধর্ষকদের আশঙ্কা- বেঁচে থাকলে মীম সবাইকে ধর্ষণের কথা বলে দেবে। এতে ফেঁসে যাবে তারা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ফেঁসেই গেল। পুলিশের তদন্তে সুরতহাল রিপোর্ট আর সন্দেহভাজন হিসেবে আটক মনিরুল ইসলামের দেয়া তথ্যের সূত্র ধরে পুলিশ ৬ ধর্ষককে আটক করেছে।

প্রতিবেশির সাথে মায়ের ঝগড়ার ভয়ানক মূল্য দিতে হলো নয় বছরের শিশু ফাতেমা আক্তার মীমকে । ৬ দিন আগে

সাত পাষণ্ড তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করে। মীমের মা রাবেয়া বেগমের সঙ্গে টাকাপয়সা সংক্রান্ত বিরোধ ছিল প্রতিবেশি বেলাল হোসেন বিজয়ের মায়ের। সেই বিরোধের প্রতিশোধ নিতে বিজয় এলাকার আরও কয়েকজন সহযোগী নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করেছে’ আসামীদের কাছে থেকে পাওয়া জবানবন্দীতে পাওয়া গেছে এমনি তথ্য।

চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটির মূল হোতা বিজয়সহ ছয়জন ধরা পড়লে এ তথ্য ফাঁস হয়ে পড়ে। তদন্তরত পুলিশ কর্মকর্তাদের সহযোগিতা করেন মীমের মা রাবেয়া। তিনি প্রথম থেকেই বিজয়ের দিকে সন্দেহের আঙ্গুল তোলেন। কারণ হিসেবে তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন, এর আগেও একবার বিজয় মীমকে ধর্ষণের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছিল। নগরীর আকবর শাহ থানার বিশ্বকলোনি আয়শা মমতাজ মহলে গত মঙ্গলবার ন্যক্কারজনক এ ঘটনাটি ঘটে। গ্রেফতারকৃত ছয়জনের মধ্যে আয়শা মমতাজ মহলের কেয়ারটেকার মনিরুলকে ঘটনার পরপরই গ্রেফতার করা হয়েছিল। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী নগরী ও কুমিল্লার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বাকি পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন আকবর শাহ থানার ওসি আলমগীর মাহমুদ। এরা হলেন বেলাল হোসেন বিজয় (১৮), রবিউল ইসলাম রুবেল (১৬), হাছিবুল ইসলাম লিটন (২৬), আকসান মিয়া (১৮) এবং মো. সুজন (২০)। সৈকত নামে একজনকে এখনও গ্রেফতার করা যায়নি।

এদিকে মীমকে শ্বাসরোধে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতার ৫ আসামি আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুল হোসাইনের আদালতে তারা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। নগর পুলিশের উপ কমিশনার (প্রসিকিউশন) নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্তী এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বিকেল পাঁচটার দিকে তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করা শুরু হয় বলে তিনি জানান। নির্মলেন্দু বিকাশ চক্রবর্তী বলেন, পাঁচ আসামিকে বিকেল ৩টার দিকে আদালতে আনা হয়। সন্ধ্যা ৫টার দিকে তাদের জবানবন্দি রেকর্ড শুরু হয়েছে। এর আগে দুপুরে এই ঘটনায় গ্রেফতার অপর আসামি আয়শা মমতাজ মহলের কেয়ারটেকার মনিরুল ইসলাম মনুকে আদালতে তুলে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করে পুলিশ। শুনানি শেষে অতিরিক্ত মহানগর হাকিম শাহাদাত হোসেন ভূঁইয়া তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আকবর শাহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর মাহমুদ জানান, চট্টগ্রামে ৯ বছরের শিশু মীম ধর্ষণ ও হত্যায় বাড়ির কেয়ারটেকারসহ ৭ জন জড়িত ছিল। জড়িতদের মধ্যে ৬ জনকে আটক করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ধর্ষণ ও হত্যার কথা স্বীকার করেছে। এর মধ্যে কেয়ারটেকার মনিরুল ইসলাম মনুসহ ৬ জন গত বৃহস্পতিবার পুলিশের হাতে আটক হয়েছে। জেলা ও নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। পুলিশ আরো একজনকে ধরতে অভিযান চালাচ্ছে।

এ নিয়ে মোট ৬ জনকে আটক করার কথা জানান আকবর শাহ্‌ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আলমগীর মাহমুদ। তিনি জানান, সন্দেহভাজন হিসেবে ঘটনার দিন মমতাজ মহল ভবনের কেয়ারটেকার মনিরুল ইসলামকে (৪১) আটক করা হয়।
মনিরুল ইসলামের স্বীকারোক্তিতে ৫ খুনিকে আটক করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা ৯ বছরের শিশু মীমকে সাতজনে ধর্ষণের পর গলা টিপে হত্যার কথা স্বীকার করেছে বলে জানান ওসি আলমগীর মাহমুদ।

ওসি আলমগীর মাহমুদ জানান, গত ২১শে জানুয়ারি রাত সাড়ে ১০টায় চট্টগ্রাম মহানগরীর আকবর শাহ্‌ থানা সংলগ্ন বিশ্বকলোনি এলাকায় মমতাজ মহল নামক পাঁচতলা একটি ভবনের দ্বিতীয় তলার বারান্দা থেকে ফাতেমা আক্তার মিম নামে ৯ বছরের শিশুর লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ সময় মিমের গালে ও গলায় জখমের চিহ্ন দেখা যায়। এতে ধারণা করা হয় ধর্ষণের পর শিশু মীমকে খুন করা হয়। পরে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। সেখান থেকে মীমকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যার কথা জানানো হয়।
পর দিন ২২শে জানুয়ারি মীমের মা রাবেয়া আক্তার বাদী হয়ে নগরীর আকবর শাহ্‌ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এতে সুনির্দিষ্টভাবে কাউকে আসামি করা হয়নি। তবে অজ্ঞাতনামা ১০-১২ জনকে আসামি করা হয়।

এ ঘটনায় মীমের লাশ উদ্ধারের সময় মমতাজ মহল ভবনের কেয়ারটেকার মনিরুল ইসলামকে আটক করার পর জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও সে এ ব্যাপারে কিছুই জানে না বলে জানান। এমনকি ভবনে মিমের লাশ কিভাবে এলো সে ব্যাপারেও জানে না বলে দাবি করেন।
কিন্তু ঘটনার প্রাথমিক তদন্তে নিশ্চিত হওয়া গেছে, মীমের লাশ ভবনের উপর থেকে কোলে করে দ্বিতীয় তলার বারান্দায় এনে রাখা হয়েছে। সোহান নামে ওই ভবনের এক বাসিন্দা কাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে রাতে প্রথম মীমের লাশ দেখে পুলিশকে খবর দেন।

পরে আশপাশের দোকানদারদের সঙ্গে কথা বলার পর নিশ্চিত হওয়া গেছে মীমকে হত্যার পর এ ভবনে আনা হয়নি। বরং মীমকে এ ভবনে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। এ বিষয়ে তথ্য উপস্থাপন করার পর ভবনের কেয়ারটেকার মনিরুল ইসলাম ধর্ষণের পর মীমকে গলাটিপে হত্যার কথা স্বীকার করে।
তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার রাতে অভিযান শুরু করা হয়।

পুলিশের প্রাথমিক তদন্ত, আসামীদের জবানবন্দী থেকে জানা যায়, ফাতেমা আক্তার মীম চট্টগ্রাম মহানগরীর ফয়’স লেক সি ওয়ার্ল্ড এলাকায় মা-বাবার সঙ্গে থাকতো। তার বাবা জামাল উদ্দিন নগরীতে কাপড় ধোয়ার কাজ করেন। মা রাবেয়া গৃহিণী ও বাইরের অন্য পরিবারে গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করেন।
তাদের বাড়ি ভোলা জেলায়। ২ বছর আগে স্বামী-স্ত্রী কাজের সন্ধানে চট্টগ্রামে এলেও গত বছরের শেষের দিকে মীমকে চট্টগ্রামে নিয়ে আসেন। মীমকে তারা স্থানীয় একটি মাদ্‌রাসায় আরবি শিক্ষার জন্য ভর্তি করিয়ে দেন।

ঘটনার দিন বিকালে মীম পাশের ঘরের দুই শিশুর সঙ্গে খেলতে গিয়ে নিখোঁজ হয়।
একপর্যায়ে রাত সাড়ে ১১টার দিকে খবর পেয়ে নগরীর আকবর শাহ্‌ থানায় ছুটে যান মা রাবেয়া খাতুন ও বাবা জামাল উদ্দিন। তারা সেখানে গিয়ে মীমের লাশ শনাক্ত করে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এ সময় বাবা জামাল উদ্দিন পুলিশের পায়ে ধরে এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত নরপশুদের গ্রেপ্তার ও বিচার দাবি করেন। বাবার আকুতি ও মায়ের আহাজারিতে তখন এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের সৃষ্টি হয়।

এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আকবর শাহ্‌ থানার এসআই সফিউল আলম মুন্সী বলেন, ময়নাতদন্তে ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর মীম হত্যায় থানায় মামলা দায়ের করেন তার মা রাবেয়া খাতুন। কিন্তু গত তিনদিনেও মীম হত্যার কোনো ক্লু না পাওয়ায় তার ডিএনএও সংগ্রহ করা হয়েছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আটক মনিরুলের স্বীকারোক্তিতে ধরা পড়ল মীমের ধর্ষক ও খুনিরা।
তিনি বলেন, মীম ধর্ষণে ধর্ষক গ্রুপের সাতজনের মধ্যে আরও একজন আটকের বাইরে রয়ে গেছে। তাকে আটকে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত ২১ জানুয়ারি গভীর রাতে আকবর শাহ থানার বিশ্ব কলোনি এলাকায় মাদ্রাসা ছাত্রী মীমকে ধর্ষণের হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় শিশুটির মা আকবর শাহ থানায় মামলা করেছেন। মীম সী ওয়ার্ল্ড এলাকার বাসিন্দা প্রবাসী জামালের মেয়ে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com