আজ থেকে ট্রাফিক শৃঙ্খলা কার্যক্রম শুরু

আজ থেকে ট্রাফিক শৃঙ্খলা কার্যক্রম শুরু

আজ থেকে ট্রাফিক শৃঙ্খলা কার্যক্রম শুরু
আজ থেকে ট্রাফিক শৃঙ্খলা কার্যক্রম শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানীতে ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং ট্রাফিক শৃঙ্খলা আনার জন্য ট্রাফিক কার্যক্রম শুরু হচ্ছে আজ মঙ্গলবার থেকে।

পুলিশ জানায়, ট্রাফিক সপ্তাহ, ট্রাফিক শৃঙ্খলা সপ্তাহ ও ট্রাফিক সচেতনতা মাস পালনের মাধ্যমে ট্রাফিক আইনের কঠোর বাস্তবায়ন ও সচেতনতা বৃদ্ধিই এর মূল লক্ষ্য। ট্রাফিক আইন না মানার সংস্কৃতি এবং ট্রাফিক আইন বাস্তবায়নে অপর্যাপ্ত ট্রাফিক ইঞ্জিনিয়ারিং সুবিধা ও বিভিন্ন সমস্যার কারণে দীর্ঘদিনের পুঞ্জিভূত সমস্যা রাতারাতি সমাধান সম্ভব না হলেও, ট্রাফিক আইনের কঠোর প্রয়োগ এবং জনসচেতনতার ফলে ঢাকা শহরে ট্রাফিক শৃঙ্খলার উন্নতি এখন অনেকটাই দৃশ্যমান হবে। ১৫ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত এ কার্যক্রম পরিচালিত হবে।

এ সময় জনসাধারণকে ট্রাফিক আইন মেনে চলতে উদ্বুদ্ধকরণে সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। শৃঙ্খলা কার্যক্রম সফল করার জন্য নগরবাসীদের সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ করা হলো।

১। ট্রাফিক সচেতনতামূলক লিফলেট, প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন, গাইড বই বিতরণ।

২। সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার সদস্যদের নিয়ে ঢাকা মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ ইন্টারসেকশনগুলো ট্রাফিক সচেতনতামূলক কার্যক্রম অনুষ্ঠানের আয়োজন।

৩। রোভার স্কাউট, রেড ক্রিসেন্ট, গার্ল গাইডস, বিএনসিসি সদস্যদের ট্রাফিক কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করা।

৪। ঢাকা সিটি করপোরেশন উত্তর ও দক্ষিণের সঙ্গে সমন্বয় করে অবশিষ্ট জেব্রাক্রসিং/রোড মার্কিংগুলো দৃশ্যমান/স্থাপনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

৫। মূল সড়কের পাশে অবস্থিত স্কুল কলেজের ক্লাশ শুরু এবং ছুটির সময়ে ওই এলাকায় ট্রাফিক পুলিশ ও স্কুল-কলেজের ভলান্টিয়ার মোতায়েন করা এবং এসব অঞ্চলে যথাযথ ট্রাফিক সাইন স্থাপন করা।

৬। হাইড্রলিক হর্ণ, দ্রুত গতির যানবাহন, বেপরোয়াগতি, হুটার, বিকন লাইট, উল্টো পথে চলাচল এবং মোটরসাইকেল আরোহীদের হেলমেট ব্যবহারসহ সব ধরনের ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনের বিরুদ্ধে পরিচালিত বিশেষ ট্রাফিক অভিযান এবং মোবাইল কোর্ট কার্যক্রম অব্যাহত রাখা।

৭। ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ ২৯টি পয়েন্টে চেকপোস্ট কার্যক্রম অব্যাহত রাখা।

৮। ঢাকার গুরুত্বপূর্ণ ৩০টি ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহারে পথচারীদের উদ্বুদ্ধকরণে পুলিশ সদস্য মোতায়েন কার্যক্রম অব্যাহত রাখা।

৯।গাড়ি চালানোর সময় স্টপেজ ব্যতিত সব সময় গাড়ির দরজা বন্ধ রাখার ব্যবস্থা গ্রহণ।

১০।জেব্রাক্রসিংয়ের আগে গাড়ি থামানো এবং স্টপেজ ছাড়া যত্রতত্র গাড়ি থামানোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ এবং বামলেন ঘেঁষে নির্ধারিত স্টপেজে গাড়ি থামিয়ে যাত্রী ওঠানামা নিশ্চিত করা।

১১। ভিডিও মামলার সংখ্যা বৃদ্ধি করা।

১২। ইতিপূর্বে মডেল করিডোর হিসেবে ঘোষিত বিমানবন্দর হতে শহীদ জাহাঙ্গীর গেট, ফার্মগেট, সোনারগাঁও, শাহবাগ, মৎস ভবন, কদম ফোয়ারা, পুরাতন হাইকোর্ট হয়ে জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত ভিআইপি সড়কের ইন্টারসেকশনগুলো রিমোর্ট কন্ট্রোল সরবরাহ নিশ্চিত করে অটোমেটিক ও রিমোর্ট কন্ট্রোলের মাধ্যমে সিগন্যাল পরিচালনা করা।

১৩। ফার্মগেট হতে সাতরাস্তা পর্যন্ত রাস্তাটিকে গাড়ি চলাচলের জন্য উন্মুক্ত রাখা।

ডিএমপির গণমাধ্যম শাখার প্রধান মো. মাসুদুর রহমান বলেন, সড়কে শৃঙ্খলার লক্ষ্যে গত ৫-১৪ আগস্ট ঢাকা মহানগরীতে ট্রাফিক সপ্তাহ পালন ও ৫-৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মাসব্যপী ট্রাফিক আইনের কঠোর বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ট্রাফিক সচেতনতা মাস পালন এবং ২৪-৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ট্রাফিক শৃঙ্খলা সপ্তাহ পালনের মাধ্যমে ট্রাফিক সচেতনতা বৃদ্ধি, ট্রাফিক গাইড বুক প্রকাশ ও প্রচার, ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ধারণা দেওয়া।  টার্মিনালে সভা সমাবেশ, সচেতনতামূলক ভিডিও প্রদর্শন, লিফলেট, পোস্টার বিতরণ, পথচারীদের ফুট ওভারব্রিজ, আন্ডারপাস ও জেব্রাক্রসিং দিয়ে রাস্তা পারাপারে উদ্বুদ্ধকরণসহ সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। এর পাশাপাশি জনসাধারাণকে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করার জন্য ট্রাফিক পুলিশের সঙ্গে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট, রোভার স্কাউটস, বিএনসিসি ও বাংলাদেশ গার্ল গাইডস  সদস্যদের সম্পৃক্ত করা হয়েছিল। তবে শৃঙ্খলা পুরোপুরি না আসায় আবারও ১৫ দিনের এ সপ্তাহ শুরু করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com