সংবাদ শিরোনাম :
আজমিরীগঞ্জে বালু উত্তোলনের সরঞ্জাম জব্দ ও ধ্বংস

আজমিরীগঞ্জে বালু উত্তোলনের সরঞ্জাম জব্দ ও ধ্বংস

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ আজমিরীগঞ্জে চোরাইভাবে ড্রেজার মেশিনের মাধ্যমে কুশিয়ারার কালনী নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে বেশ কিছুদিন ধরে লোকজনের নিকট বিক্রি করে আসছে একটি অসাধুচক্র। গোপনসূত্রে খবর পেয়ে, গতকাল রবিবার বিকাল অনুমানিক ৫ টায় অভিযান চালিয়ে বালু উত্তোলনের সরঞ্জাম অর্থাৎ ১ হাজার ফুট পাইপ, মেশিন সহ ট্রলার জব্দ ও ধ্বংস করে সহকারী কমিশনার ( ভূমি) উত্তম কুমার দাস।

জানা যায়,
চলমান নদীর তলদেশ থেকে ড্রেজার মেশিনের মাধ্যমে বালু উত্তোলন করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষনা করেছে সরকার। কিন্তু ওই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে এলাকার একটি অসাধুচক্র কুশিয়ারার কালনী নদীর তলদেশ থেকে বেশ কিছুদিন ধরে চোরাইভাবে বালু উত্তোলন করে আসছে। এ চক্রটি বিভিন্ন এলাকার ব্যাক্তি বা প্রতিষ্টানের নিকট প্রতিফুট বালু ১০ থেকে ১৫ টাকায় বিক্রি করছে। সূত্র জানায়, অনুমানিক গত একমাস পূর্বে আজমিরীগঞ্জের ২ নং বদলপুর ইউনিয়নের পাহাড়পুরের দু’টি স্হানে, একই এলাকার পিরোজপুর ও পিটুয়ারকান্দায় বালু ভরাট করে ভিটা নির্মাণ করা হয়েছে। এদিকে গত এক সপ্তাহ পূর্বে ৪ নং কাকাইলছেও ইউনিয়নের বদলপুর গ্রামে। এ ছাড়া গত শনিবারে আজমিরীগঞ্জ পৌর সভাধীন মালুমমিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ বেশকিছু স্হানে বালু ভরাট করে ভিটা নির্মাণের কাজ করে চক্রটি।গত এক থেকে দেড়মাসে উল্লেখিত জায়গা সমূহে উত্তোলনকৃত মাটির পরিমাণ অনুমানিক ৩ লাখ ঘনফুট। প্রতিফুট ১৫ টাকা হিসেবে ৩ লাখ ঘনফুট বালুর বিক্রয় মূল্য ৪৫ লাখ টাকা। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল রবিবার দুপুরে ওই চক্রের লোকজন আজমিরীগঞ্জ পৌর এলাকার সমীপুর ( কুমারঘাট) গ্রামের অদূরে কাকাইলছেও -আজমিরীগঞ্জ রাস্তা সংলগ্ন নীচু ম্হানে চোরাইভাবে বালু ভরাট করে ভিটা নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। এ প্রেক্ষিতে কুশিয়ারার কালনী নদীর তীর থেকে কাকাইলছেও -আজমিরীগঞ্জ রাস্তা অতিক্রম করে ভিটা অবদি পাইপ সংযোগ দেয়। পর একই দিন বিকাল অনুমানিক ৪ টায় বালুভর্তি বড় ট্রলার এসে আনলোড করার কাজ শুরু করে। এদিকে গোপনসূত্রে খবর পেয়ে, সহকারী কমিশনার ( ভূমি) ঘটনাস্হলে সরজমিনে উপস্হিত হয়ে বিকাল অনুমানিক ৫ টায় অভিযান পরিচালনা করে বালু উত্তোলনের সরঞ্জাম অর্থাৎ , ১ হাজার ফুট পাইপ, মেশিন সহ ব্যবহৃত ট্রলারটি জব্দ কিছু পাইপ ভেঙ্গে ধ্বংস করেন। এ সময় অসাধুচক্রের সদস্যরা দৌঁড়ে ও বালুভর্তি ট্রলারটি নিয়ে পালিয়ে যায়। অসাধুচক্রের লোকজন কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রামের আব্দুল্লাপুরের অদূরে কুশিয়ারার কালনী নদীর তলদেশ থেকে ড্রেজার মেশিনের মাধ্যমে বালু উত্তোলন করে বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করছিল। এ ছাড়া একই এলাকার মিটামইন ও ইটনা এলাকা থেকেও বালু উত্তোলনের অভিযোগ রয়েছে এ চক্রের বিরুদ্ধে। এরা বালু ভরাটের নির্ধারিত স্হানে তড়িঘড়ি করে পাইপ সংযোগ দিয়ে একই সময় বালু ভরাট করে, পাইপ খোলে নিয়ে আবার সাথ সাথ ঘটনাস্হল ত্যাগ করে চলে যায়। যার কারণে স্হানীয় গণমাধ্যম কর্মী ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের ধরা-চোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে বরাবরই।
ছবি-

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com