আজই শেষ মিরপুর টেস্ট

আজই শেষ মিরপুর টেস্ট

রোকালয় ডেস্ক: বুনো ষাঁড়ও কারও কারও কাছে বশ মানে। আর এ তো মাটির উইকেট! আর সব ব্যাটসম্যান যেখানে উইকেটের মন বুঝতে ব্যর্থ, সেখানে প্রবল ব্যতিক্রম শ্রীলঙ্কার রোশেন সিলভা। প্রথম ইনিংসে ফিফটির পর দ্বিতীয় ইনিংসেও কাল দিন শেষে অপরাজিত ৫৮ রানে। বেয়াড়া উইকেটকে বাগে আনার কৌশল নিশ্চয়ই তাঁর জানা।

তো সেই কৌশলটা কী? মিরপুরের এই উইকেটে ভালো ব্যাটিং কীভাবে করা যায়? সংবাদ সম্মেলনে ঠোঁটে মুচকি হাসি ফুটিয়ে রোশেন বললেন, ‘আমার মনে হয় এখানে ব্যাটিং করতে যাওয়ার আগে প্রার্থনা করে নেওয়াটাই সবচেয়ে ভালো উপায়।’

শেরেবাংলা স্টেডিয়ামের উইকেট নিয়ে এরপর আর বলার কিছু থাকে না। এ-সংক্রান্ত যাবতীয় আলোচনার উপসংহার টেনে দিয়েছে রোশেনের মজা করে বলা কথাটাই। তবু পরিস্থিতি সম্পর্কে আরেকটু বিস্তারিত যাঁরা জানতে চান তাঁদের জন্য বলা—টেস্টের প্রথম দিনের মতো কালও এই উইকেটে আউট হয়েছেন ১৪ জন ব্যাটসম্যান। বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস ও শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ইনিংস মিলে সারা দিনে রান হয়েছে ২৫৪।

প্রথম ইনিংসে ১১২ রানের লিডের সঙ্গে দ্বিতীয় ইনিংসে কাল পর্যন্ত ৮ উইকেটে ২০০। ৩১২ রানে এগিয়ে থেকে দিন শেষ করেছে শ্রীলঙ্কা। দুই দিনেই আড়াই ইনিংস শেষ হয়ে যাওয়ায় এটা এখন বলেই দেওয়া যায় যে, এই টেস্টে ফলাফল হচ্ছে এবং সেটি আজ তৃতীয় দিনে হয়ে গেলেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। আর সেই ফল বাংলাদেশের পক্ষে হলে মিরপুর টেস্ট জায়গা পেয়ে যাবে রেকর্ড বইয়ে। মিরপুরে চতুর্থ ইনিংসে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ১০১ রান তাড়া করে জেতার রেকর্ড আছে বাংলাদেশের। দেশের বাইরেও সেটি তিন শর কাছাকাছি যায়নি। ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২১৫ রান তাড়া করে জেতাটাই এখনো চতুর্থ ইনিংসে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রান করে জেতার রেকর্ড।

অসম্ভবকে সম্ভব করে রেকর্ডটা বাংলাদেশ করতে পারলে খুবই ভালো। তবে কাল মধ্যাহ্নবিরতির আগেই প্রথম ইনিংসে ১১০ রানে অলআউট হয়ে লজ্জার একটি রেকর্ড তারা এরই মধ্যে করে ফেলেছে। শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে এটিই এখন সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ। তবে টেস্টটা স্পিন উইকেটে হলেও এই রেকর্ডের জন্য আবার উইকেটকে দায়ী করার সুযোগ নেই। প্রথম দিনেই ওপরের দিকের চার ব্যাটসম্যানকে হারানোর পর কালও লক্ষ্যহীন সব শটেরই বলি হয়েছেন ব্যাটসম্যানরা। উইকেটে ভালো টার্ন ছিল, বাউন্সও হয়েছে অসম। কিছু বল তো বেশ নিচু হয়েই গেছে। কিন্তু সেসব বলে উইকেট না দিয়ে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা আউট হয়েছেন নির্বিষ সব বলে, নিজেদের ভুলে।

দিনের পঞ্চম ওভারে সুরঙ্গা লাকমলের অফ স্টাম্পের বাইরে করা বলে জায়গায় দাঁড়িয়ে ব্যাট চালিয়ে প্লেড-অন হয়েছেন লিটন দাস। অফ স্পিনার আকিলা দনাঞ্জয়ার বলে মিড উইকেটে সহজ ক্যাচ তুলে ফিরেছেন সাব্বির রহমান। ওই ওভারেই তিন বল আগে দনাঞ্জয়া ফিরিয়েছেন মাহমুদউল্লাহকেও। ওই একটা আউটই যা একটু ভালো বলে। অফ স্টাম্পের বাইরে পড়ে বেশ বাঁক খাওয়া বলটা মাহমুদউল্লাহর ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে ভেঙে দিয়েছে স্টাম্প। অভিষেক টেস্ট খেলতে নামা দনাঞ্জয়ার প্রথম উইকেট। শেষ পর্যন্ত বোলিং বিশ্লেষণ ১০-২-২০-৩। এর চেয়ে ভালো অভিষেক হয়তো দনাঞ্জয়াও আশা করেননি।

যাঁকে নিয়ে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের বেশি ভয় ছিল, সেই রঙ্গনা হেরাথকেই থাকতে হয়েছে উইকেটশূন্য। বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডারের শেষ ভাগ এত দ্রুত গুটিয়ে গেছে যে শেষ ৫ উইকেট পড়েছে মাত্র ৩ রানে! এর সঙ্গে দুই ব্যাটসম্যানের রানআউট আর ব্যাটসম্যানদের বাজে শট খেলে আউটের প্রবণতায় একটি বার্তা পরিষ্কার—টেস্টের ব্যাটিংটা করতে পারছে না বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত ৩৮ রানে অপরাজিত থাকা মিরাজই যা একটু ব্যতিক্রম।

সেই তুলনায় বোলাররাই একটু সফল। স্পিনার, পেসার সবাই উইকেটের সঙ্গে অল্পবিস্তর বন্ধুত্ব গড়ে তুলেছেন। প্রথম টেস্টের ব্যাটিং উইকেটের পর মিরপুরের স্পিন উইকেটেও দুর্দান্ত মোস্তাফিজ। ৩৫ রানে ৩ উইকেট নিতে গিয়ে কাল তো হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনাও জাগিয়েছিলেন একবার! আগের দিন তাঁর বলে স্লিপে দিলরুয়ান পেরেরার ক্যাচ ফেলেছিলেন সাব্বির। লাকমলের ক্যাচ ফেলে কালও তিনি বঞ্চিত করেছেন মোস্তাফিজকে।

এর আগে শুরুটা যথারীতি দুই স্পিনার আবদুর রাজ্জাক ও মেহেদী হাসান মিরাজকে দিয়ে। ৯২ রানে ৪ উইকেট হারানো শ্রীলঙ্কাকে পথের দিশা দিয়েছেন অধিনায়ক দিনেশ চান্ডিমাল ও রোশেন। পঞ্চম উইকেটে দুজন মিলে গড়েছেন ৫১ রানের জুটি।

টেস্টে এটা হয়তো কিছুই নয়, তবে যে উইকেটে খেলা হচ্ছে সেখানে একটা পঞ্চাশ রানের জুটি বা একজন ব্যাটসম্যানের ফিফটিও দলকে এগিয়ে দিতে পারে অনেক। প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশ সেটি পারেনি, শ্রীলঙ্কা পেরেছে দুই ইনিংসেই। দুই দলের মধ্যে হয়তো ব্যবধান গড়ে দেবে এটাই।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com