অস্বচ্ছল জনগোষ্ঠীকে স্বাবলম্বী করে তুলছে বর্তমান সরকার: এমপি আবু জাহির

অস্বচ্ছল জনগোষ্ঠীকে স্বাবলম্বী করে তুলছে বর্তমান সরকার: এমপি আবু জাহির

অস্বচ্ছল জনগোষ্ঠীকে স্বাবলম্বী করে তুলছে বর্তমান সরকার: এমপি আবু জাহির
অস্বচ্ছল জনগোষ্ঠীকে স্বাবলম্বী করে তুলছে বর্তমান সরকার: এমপি আবু জাহির

স্টাফ রিপোর্টার: হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট মোঃ আবু জাহির এমপি বলেছেন, দেশের দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে স্বাবলম্বী করে তুলছে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার। বিএনপি-জামায়াতের আমলে দরিদ্র লোকজনকে ঋণ প্রদান করা হতো। এক পর্যায়ে সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে ভিটেমাটি বিক্রি করতেন সাধারণ জনগণ। কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনা দরিদ্র লোকজনকে ঋণ না দিয়ে তাদেরকে কাজ এবং স য়ের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার দেশের অস্বচ্ছল মানুষদের জীবনমান উন্নয়নে গুরুত্বের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিটি প্রত্যন্ত অ লের দরিদ্র লোকদের নিকট পৌছে দেয়া হচ্ছে সব ধরণের সেবা। পিছিয়ে পড়া নারীদের সম্পৃক্ত করা হচ্ছে উন্নয়নের স্রোতে।
বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় হবিগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদ হলরুমে জিওবি’র অর্থায়নে পল্লী কর্মসংস্থান সড়ক রক্ষণাবেক্ষন কর্মসূচি (আরআইআর এমপি-২) শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় নারী কর্মীদের স য়কৃত অর্থের চেক ও সনদপত্র বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন।
এমপি আবু জাহির আরো বলেন, বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া এতিমের টাকা আত্মসাত করে আদালত থেকে সাজাপ্রাপ্ত হয়েছেন। যারা এতিমের টাকা আত্মসাত করে তাদের কাছে জনগণের সম্পদ নিরাপদ নয়। এছাড়াও হবিগঞ্জসহ সারাদেশে বিএনপি নেতাদের সন্ত্রাস, লুটতরাজ আর দুর্নীতির ব্যাপক সমালোচনা করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে বিগত প্রায় ১০ বছরে তার মাধ্যমে হবিগঞ্জ সদর, লাখাই ও শায়েস্তাগঞ্জে সম্পন্ন হওয়া ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ডের কথা তুলে ধরে আবারো নৌকায় ভোট দেয়ার আহবান জানান এমপি আবু জাহির। এ সময় উপস্থিত উপকারভোগী এবং সাধারণ লোকজন দুই হাত তুলে আবারো আওয়ামী লীগ সরকারকে বিজয়ী করার প্রতিশ্র“তি জানান।
উপজেলা মোঃ প্রকৌশলী ওবায়দুল বাশার জানান, রুরাল এমপ্লয়মেন্ট এন্ড রোড মেইন্টেন্স প্রোগ্রাম-২ এর আওতায় ২০১৪ইং সনের ১৬ এপ্রিল থেকে শুরু করে ৩ বছর ৬ মাস ধরে কাজ কারছিলেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের ১০০ জন নারী শ্রমিক। পরে প্রকল্পটির মেয়াদ আরো ৬ মাস বর্ধিত করা হয়। তাদের দৈনিক মুজুরী ছিল ১৫০ টাকা। সেখোন থেকে প্রতিদিন ৫০ টাকা করে স য় করা হয়। কাজ শেষে প্রত্যেককে তাদের স য়ের টাকা প্রদান করা হয়েছে। এর মধ্যে কাজে উপস্থিতি অনুযায়ী একেকজন সর্বোচ্চ ৭৫ হাজার এবং সর্বনি¤œ ৬২ হাজার করে সর্বমোট ৭০ লাখ ৭৭ হাজার স য়ের টাকা পেয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মর্জিনা আক্তারের সভাপতিত্বে চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ আহমুদুল হক, জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান আউয়াল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস আরা বেগম, ইউপি চেয়ারম্যান হোসাইন মোঃ আদিল জজ মিয়া, আক্তার হোসেন এবং তাজ উদ্দিনসহ সরকারি কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

 
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com