অবরুদ্ধ জীবনের শেষ কোথায়?

অবরুদ্ধ জীবনের শেষ কোথায়?

বাংলাদেশে অঘোষিত লকডাউনের এক মাস পূর্ণ হলো ২৫ এপ্রিল। এই অবরুদ্ধ জীবনের শেষ কোথায় এমন প্রশ্নই বেশিরভাগ মানুষের মুখে।

কেননা কর্মহীন ও অলস জীবনে হাঁপিয়ে উঠেছে সব বয়সীরা। চরম সঙ্কটে নিম্ন আয়ের মানুষ, ধুঁকছে মধবিত্তরা আর উচ্চবিত্তরা দুশ্চিন্তায় ভবিষ্যত নিয়ে।

চেনা রাস্তাপথ আজ যে বড্ড অচেনা। হাজারও পদচারনায় মুখর মহানগীর আজ যেন ঘুমিয়ে আছে কোন এ অশনিসংকেতের কারণে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে ২৬ মার্চ থেকে চলছে সাধারণ ছুটি।

দেশজুড়ে চলছে অঘোষিত লকডাউন। তবুও প্রতিদিনি বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা। এ যেন এক দমবন্ধ পরিস্থিতি।

সব কিছুই একঘেয়ে লাগছে। তবুও আটকে থাকতে হচ্ছে চার দেয়ালের মাঝেই।

হাজারো মানুষের রুটিরুজির জোগানদাতারা আছেন দুঃশ্চিন্তায়। ব্যবসা বন্ধ হলে কি হবে আগামী দিনে। দীর্ঘ দিনের অবরুদ্ধ জীবন প্রভাব ফেলছে মনের ওপরও। তাই মানসিক চাপ নিয়ে ভাবছেন মনোবিজ্ঞানীরা।

সংক্রমণ ঠেকাতে আপাতত এই অবরুদ্ধ পথের বিকল্প কিছু নেই। তাই যত নিশ্চিত হবে সামাজিক দূরত্ব ততই দূর হবে করোনাভাইরাস।

তবুও জীবন বাঁচাতে হবে সেই সাথে অর্থনীতি।

এখন ‘ঘরে থাকা’ কর্মসূচি চলছে দেশে দেশে। অনেক দেশ লকডাউন শিথিল করতে চাইছে।

অফিস-আদালত, কল কারখানা, পরিবহনসহ খেটে খাওয়া মানুষের উপার্জনের সব পথ প্রায় বন্ধ।

জরুরি জীবনোপকরণ, ওষুধ, খাদ্য এরকম কয়েকটি খাত ছাড়া বাকি সব খাতের দরজায় এখন তালা ঝুলছে।

এ পরিস্থিতি থেকে বড় দেশ- ছোট দেশ কেউ বাইরে নেই। কিন্তু যেসব দেশের অর্থনীতি মজবুত, যেখানে দারিদ্র কম সেখানে এজাতীয় পরিস্থিতির চূড়ান্ত ভোগান্তির পরিমাণ কম। কিন্তু যেসব দেশে দরিদ্র মানুষ বেশি, নিত্যদিন খেটে রোজগার করে ঘরে চাল-ডাল কিনে নিয়ে যায়, কর্মহীন দিনের পর দিন, প্রায় তিন সপ্তাহ, পার হয়ে যাওয়ার পর তাদের চুলো জ্বলবে কীভাবে, এই প্রশ্নটি এখন অনেক বড় হয়ে উঠছে।

 

বাংলাদেশে ‘ লকডাউন’ একটি পরিস্থিতি বিরাজমান। একমাস হয়ে গেছে।

আরো কতদিন যাবে এটা এখনই বলা মুশকিল। করোনা ভাইরাসের প্রকোপ কবে কমে আসবে অথবা নিঃশেষ হবে, ঠিকঠাক কেউ বলতে পারছে না। ধরুন আরও এক মাস, দেড় মাস, দুমাস…।

এ অবস্থায় রোজগার বন্ধ কয়েক কোটি গরিব মানুষের পেটের ক্ষুধা তো বন্ধ থাকবে না! একদিকে ভাইরাসের মৃত্যুভয়, আরেকদিকে তিলে তিলে ক্ষুধায় মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাওয়ার পরিস্থিতি!

কোনো সংকটকেই তো এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ নেই, ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। কী করা তবে! বিকল্প কোনো পথ কি নেই? সমন্বিত চিন্তার কোনো সুযোগ কি নেই?

লকডাউন পরিস্থিতি স্থগিত করা কিংবা কিছু আয় রোজগার ও মেলামেশার অবস্থা চালু করা, করোনা ভাইরাসের এই প্রখর সংক্রমনের সময়টায় খুব ঝুঁকিপূর্ণ, এটা তো বোঝাই যাচ্ছে।

তারপরও ক্ষুধা ও দারিদ্র্য এবং কোটি কোটি মানুষের না খেয়ে বাঁচা-মরার সংকট সামনে নিয়ে কিছু একটা ভাবা দরকার আছে বলে মনে হয়।

বিত্তবান কোনো কোনো দেশ, যেখানে কোনো একদিনে কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ১২০০/১৫০০ লোক মারা যাচ্ছে, সেখানেও সম্প্রতি লকডাউন শিথিল করে কিছু কর্ম পরিবেশ তৈরীর ঘোষণা শোনা যাচ্ছে। তুরস্কে করোনায় মৃত্যুর হার বাংলাদেশের চেয়ে অনেক বেশি। সেখানে ৬৫ বছরের বেশি আর ২০ বছরের কম বয়সী নাগরিকদের ঘর থেকে বের হতে মানা করা হয়েছে, অন্যদের জন্য কিছু সতর্কতাসহ কাজের পরিবেশ খুলে দেওয়া হয়েছে। এতেও যে ঝুঁকি থাকছে না এমন নয়, তারপরও এটা করা হয়েছে।

অনেক দেশ অফিস-আদালত, কল কারখানা সীমিত আকারে চালু করতে চায়। বাংলাদেশেও আজ থেকে অফিস কারখানা সীমিত আকারে চালু থাকবে।

কাজ-কর্মহীন প্রায় একমাস পার হয়ে গেছে। নিত্যদিনের রোজগার করা মানুষ, প্রতিদিন যার আয় ৬০০ থেকে ১ হাজার টাকা, সেই মানুষটির সর্বোচ্চ সঞ্চয় থাকে দশ দিন চলার মতো।

এদিক-সেদিকের ত্রাণের পুটলায় আরো হয়তো চলল দশ দিন। এরপর তাদের কীভাবে চলছে? কীভাবে চলবে সামনের আরো অজানা এক মাস- দেড় মাস?

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা -হু লকডাউন দিনদিন কঠোর করতে বলছে। ভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কার ভয়াবহতার দিক থেকে এ আহ্বান হয়তো পুরোপুরি ঠিক আছে।

কিন্তু কোনো কোনো দেশের কোটি কোটি ক্ষুধার্ত মানুষের বেঁচে থাকার উপায় নিয়ে হু তো কিছু বলবে না। ক্ষুধার্ত মানুষের বাঁচা-মরার এরিয়া নিয়ে তার কাজ নয়। কিন্তু অন্যদের তো এটা নিয়ে ভাবতে হবে।

নিয়ন্ত্রিত সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে এগলি -ওগলির কিছু ত্রাণ নিয়ে এদেশের কয়েক কোটি মানুষের ক্ষুধা মিটে যাবে, এমন কল্পনা করার দিন মনে হয় নেই।

করোনা ভাইরাস, লকডাউন, প্রায় লকডাউন, এর পাশাপাশি ক্ষুধার্ত মানুষের কষ্ট এবং এ পরিস্থিতির মেয়াদ নিয়ে অনিশ্চয়তার কারণে এজাতীয় ভাবনা, বিকল্প ভাবনা, তুলনামূলক ভাবনা এখন চলতে পারে। তবে এ কথাও মিথ্যা নয় যে, করোনার ঝুঁকি এবং অসতর্কতার ঝুঁকি আমাদের সমাজে মারাত্মক। জীবনের প্রয়োজনে দেওয়া কোনো শিথিলতা যেন বাঁধভাঙা স্রোতের সৃষ্টি না করে, যেন মৃত্যুর মিছিল তৈরি না করে, এদিকটির প্রতিও বিবেচনা দরকার। শিথিলতা কিছু আনলে সেটা শ্রেণি, কাজ ও সময় বিভক্ত করেও আনা যেতে পারে।

কাজ ও চলার পরিবেশেও মানুষের সচেতনতা এবং দূরত্ব যেন বজায় থাকে সেদিকে প্রশাসনিক ও প্রাতিষ্ঠানিক কঠোর ব্যবস্থা থাকতে পারে।

যেসব দেশে সীমিত পর্যায়ে শিথিলতা আনা হয়েছে, সেসব দেশের শিথিলতা ও সতর্কতার বিষয়গুলোর প্রতি অবশ্যই চোখ রাখতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com