অপরুপকে আরো সুন্দর করেছে চুনারুঘাটের সাদা পদ্মপরী বিল

অপরুপকে আরো সুন্দর করেছে চুনারুঘাটের সাদা পদ্মপরী বিল

অপরুপকে আরো সুন্দর করেছে চুনারুঘাটের সাদা পদ্মপরী বিল
অপরুপকে আরো সুন্দর করেছে চুনারুঘাটের সাদা পদ্মপরী বিল

হবিগঞ্জের চুনারুঘাটের প্রকৃতির অপরুপকে আরও সুন্দর ও মনোমুগ্ধকর করে তুলেছে সাদা পদ্ম পরী বিল। প্রকৃতির অপরুপে ঘেরা আমাদের চুনারুঘাট। অথচ ক্রমানয়ে এই রুপ আমরা বিভিন্ন ভাবে সংরক্ষন না করে ধ্বংস করছি। তাতে প্রতীয়মান হচ্ছে যে আমরা ক্রমানয়ে চুনারুঘাটের প্রকৃতি কে রক্ষা নয় ধ্বংশের পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি।

আমরা জানি প্রকৃতির প্রধান উপাদান ৬ টি। যার এক টিকে ছাড়া অন্যটি টিকে থাকতে পারে না। প্রকৃতির এ উপাদানসমূহকে এক সঙ্গে আমরা পরিবেশ বলতে পারি। আর এই পরিবেশ কে আর মনোমুগ্ধকর করে তুলে বিভিন্ন মৌসুমে ফোঁটা বিভিন্ন ধরনের ফুল।তেমনি মনোমুগ্ধকর একটি জায়গা ইতিমধ্যে সকলের দৃষ্টি কেড়ে নিয়েছি সাদা পদ্ম বেষ্টিত পরী বিল।

যাহা হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট উপজেলার ২নং আহম্মাদাবাদ ইউনিয়নের অন্তর্গত ডানকান ব্রাদার্স এন,টি,সি বেসরকারি চা বাগানের ভেতরে অবস্থিত। আমরা জানি প্রকৃতির যেকোনো একটি উপাদান ক্ষতিগ্রস্থ হলে সমস্ত প্রকৃতির উপর তার প্রভাব পড়বে। প্রকৃতির সবচেয়ে বড় উপাদান হচ্ছে মানুষ। এবং মানুষের দ্বারাই প্রতিনিয়ত প্রকৃতি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

মানুষ তার ভোগ বিলাসের সামগ্রী হিসাবে প্রকৃতির উপাদানগুলোকে ব্যবহার করছে এবং ক্রমশই তাকে ক্ষীন ও দূর্বল করে ফেলছে।সাম্প্রতিক সময়ের হবিগঞ্জের চুনারুঘাট ২নং আহমাদাবাদ ইউনিয়ের অন্তর্গত ডাককান ব্রাদার্স এন,টি,সি অধিভুক্ত চুনারুঘাটে বহুল পরিচিত ঐতিহ্যবাহী পরী বিলে সাদা পদ্ম সমাহার প্রকৃতি প্রেমিকদের মনোকৃষ্ট ও মনোমুগ্ধকর বলে পেইজবুকে জনপ্রিয়তা টনক নড়ে উঠেছে। তাই বিভিন্ন মহল এটিকে বিভিন্ন ভাবে ব্যবহার যেমন নৌকা ব্যবহার,ফিসারিজ ব্যবহার সহ ব্যবসায়ীক আয়ত্বে নেয়ার পায়তারা শুরু করেছে।

পরিবেশের এই মনোমুগ্ধকর সাদা পদ্ম পরী বিলের বিপর্যয় রক্ষা করা ও সরকারি পৃষ্টপোষকতায় পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার জন্যে জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করছি। একটু ভাবুন গাছপালা নেই, সাগর দিঘী নেই, বণ্যপ্রাণি নেই, প্রাণি বৈচিত্র্য নেই আছে শুধু মানুষ। সর্বোপরি তাকেই বাজাতে হবে শেষ ঘন্টা।

পরিবেশবাদী লেখক জর্জ লেকুক তার একটি ইংরেজি গ্রন্থে বলেছিলেন, “মানুষকে অবশ্যই নদনদী সাগরদিঘী প্রকৃতি জন্য চিন্তা ভাবনার উন্মেষ ঘটাতে হবে যাতে প্রকৃতি ধ্বংস না হয়। ” তাই প্রকৃতির এ ঘোর সংকটে আমাদের নিরন্তর ভাবা উচিত যে, এ পৃথিবী আমার এবং রেখে যাই আমার পরবর্তী প্রজন্মের জন্য যেখানে আলো বাতাসের কোনো কমতি হবে না, পাখির কলরবের কোনো ঘাটতি হবে, শ্যামল শোভায় শোভিত হবে পুণ্য ধরা আমাদের এ বসুন্ধরা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24

Desing & Developed BY ThemesBazar.Com