সংবাদ শিরোনাম :
দশ টাকায় টিকিট কেটে চক্ষু পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী বাহুবলে বেকারিতে অনুমোদনবিহীন বিএসটিআই লোগো ব্যবহার ২৫ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল ১৪ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে মাদরাসা ছাত্রীর মৃত্যু হবিগঞ্জ এসে পৌঁছেছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া শীতবস্ত্র হাওর থেকে নামছে না পানি, বীজতলা তৈরি নিয়ে শঙ্কা সিলেট বোর্ডে পাসের হার কমেছে ১৭.৯৬ শতাংশ, ফেল বেশি মানবিকে : হবিগঞ্জে পাশের হার ৭৭ দশমিক ৮৬ শতাংশ নবীগঞ্জ উপজেলা মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির  সভা অনুষ্ঠিত  মাধবপুরে নবাগত ইউএনওর মতবিনিময় সভা  মৎস্য কর্মকর্তার ডিজিটাল আইনের মামলায় দুই সাংবাদিকের জামিন মঞ্জুর
অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল অর্ধশতাধিক ছাত্রী!

অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ল অর্ধশতাধিক ছাত্রী!

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে স্কুলে পিটি করার সময় অর্ধশতাধিক ছাত্রী অসুস্থ হয়েছে পড়েছে। তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর। বুধবার বেলা ১১টায় বানিয়াচং আদর্শ হাইস্কুল মাঠে এ ঘটনা ঘটে। অভিভাবকরা জানান, সকাল সাড়ে ৯টায় প্রতিদিনের মতো জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করে শিক্ষার্থীরা। এ সময় হবিগঞ্জ থেকে স্কুল পরিদর্শনে আসেন জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রুহুল্লাহ। তিনি শিক্ষার্থীদের মাঠে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে রেখে এক ঘণ্টা বক্তৃতা করেন। এরপর আধঘণ্টা শরীর চর্চা করানো হয়। এক পর্যায়ে নবম শ্রেণির এক ছাত্রী অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এরপর একে একে অজ্ঞান হয়ে পড়ে অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী। ঘটনা বেগতিক দেখে রুহুল্লাহ তাৎক্ষণিক স্কুল থেকে সটকে পড়েন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কাউছার শোকরানা জানান, তিনজনের অবস্থা গুরুতর। এক ছাত্রীকে সিলেট ওসমানী হাসপাতাল ও দুজনকে হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বাকিরা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শামীমা আক্তার জানান, অসুস্থ শিক্ষার্থীদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। ঠিক কী কারণে তারা অসুস্থ হয়েছে এখনই বলা সম্ভব হচ্ছে না। তবে তিনি জানিয়েছেন অধিকাংশরাই বমি করছে।জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার রুহুল্লাহ বলেন, আমি অ্যাসেম্বলিতে মাত্র ২০ মিনিট বক্তব্য দিয়েছি। পরে পিটিতে ছাত্রীরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। আমি গাড়িতে করে ছাত্রীদের হাসপাতালে পাঠাই। এর আগে বেশি সময় ছাত্রীদের দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছিল কি না আমার জানা নেই। এ বিষয়ে জানতে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পারভীন আক্তারের মোবাইলে কল করা হলে রিসিভ করেন সহকারী শিক্ষক নানু মিয়া। তিনি জানান, ম্যাডাম শিক্ষার্থীদের চিকিৎসার কাজে হাসপাতালে আছেন।এক প্রশ্নের জবাবে নানু মাস্টার বলেন, অন্যদিন পিটি করানো হতো ১৫ মিনিট। আজ করানো হয়েছে আধঘণ্টা। তাই কিছু দুর্বল শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

কপিরাইট © 2017 Lokaloy24
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com